ইবিতে প্রশ্ন কেলেঙ্কারী: কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটিতে ক্ষোভ

img_20151130_233046
Share Button

ইবি সংবাদদাতা ::
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘সি’ ইউনিটের প্রশ্ন কেলেঙ্কারীর ঘটনায় কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটিতে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। কীভাবে স্বল্প সময়ে পূনঃপরীক্ষা গ্রহণের সময় নির্ধারিত হয়েছে তা অনবহিত কমিটির অনেক সদস্য। ফলে বাড়িতে গমনকারী দুরদুরন্তের শিক্ষার্থীদের ছাড়াই পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে বলে আশঙ্কা করছেন তারা।

জানা যায়, মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয় মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘সি’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষায় দিনের প্রথম শিফট সকাল ৯টায় পদ্মা ‘এ’ ও ‘বি’ সেটের প্রশ্নে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম শিফট পরীক্ষার এক ঘন্টা পর বেলা ১১টায় দিনের দ্বিতীয় শিফটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। দ্বিতীয় শিফটে পরীক্ষায় যমুনা ‘এ’ সেট ও প্রথম শিফটে অনুষ্ঠিত হওয়া পদ্মা ‘বি’ এর প্রশ্নে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ফলে এক ঘণ্টা আগে অনুষ্ঠিত প্রথম শিফটের প্রশ্নে দ্বিতীয় শিফটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরে বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তব্যরত সাংবাদিকরা কর্তৃপক্ষের নজরে আনে।

দুপুর ২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির সভাপতি ভিসি প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী, সদস্য প্রো-ভিসি প্রফেসর ড. মোঃ শাহিনুর রহমান, ট্রেজারার প্রফেসর ড. মোঃ সেলিম তোহা ও ‘সি’ ইউনিট সম্বয়কারীদের নিয়ে জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়। ভিসি নির্বাহী ক্ষমতাবলে সভায় ‘সি’ ইউনিটের অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় শিফটের পরীক্ষা বাতিল ও তৃতীয় শিফটের পরীক্ষা স্থগিত করেন। এছাড়াও আগামী শুক্রবার দ্বিতীয় ও তৃতীয় শিফটের পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেন।

এদিকে কিভাবে পরীক্ষার সময় নির্ধারিত হল তা অনবহিত কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটির সদস্যরা। ভর্তি পরীক্ষা কমিটির সদস্যদের ছাড়াই কোন কমিটি পরীক্ষা স্থগিত ও পূনঃপরীক্ষা গ্রহনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাও জানেন না কমিটির সদস্যরা। এছাড়াও স্বল্প সময়ে পরীক্ষা গ্রহনের সিদ্ধান্তে পরীক্ষার্থীদের চরম বিড়ম্বনার মুখোমুখি করছে বলে মনে করছেন তারা। এরফলে বাড়িতে গমনকারী দেশের দুরদুরন্তের শিক্ষার্থীদের ছাড়াই পরীক্ষা গ্রহন করবে বলে মনে করছেন কমিটির সদস্যরা। কমপক্ষে এক সপ্তাহ পর পরীক্ষা নেওয়ার প্রয়োজন ছিল বলে মনে করছেন তারা।

এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ভিসি প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেন,‘বিশ্ববিদ্যালয় স্বার্থ ও সামনে সমাবর্তনের কথা বিবেচনা করে আমরা আগামী শুক্রবার পরীক্ষা গ্রহনের সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছি। পরীক্ষার কেউ প্রয়োজনীয়তা অনুভব করলে দেশের দুরদুরন্ত থেকে সময়মত আসতে পারবে।

পরীক্ষার সময় নির্ধারণ সম্পর্কে তিনি বলেন,‘বিশ্ববিদ্যালয় ভিসি নির্বাহী ক্ষমতাবলে তাৎক্ষণিক প্রয়োজনে পরীক্ষার সময় নির্ধারণ করেছে। বুধবার ভর্তি পরীক্ষা কমিটির মিটিং ডাকা হয়েছে। তখন সকলকে বিষয়টি অবগত করা হবে।

এছাড়াও তদন্ত কমিটির বিষয়ে তিনি বলেন,‘অবশ্যই তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে।






সঙ্গতিপূর্ণ আরো খবর

  • জেএসসি-জেডিসির ফল প্রকাশ ৩০ ডিসেম্বর
  • ইবির সহায়ক কর্মচারী সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন
  • এসআইইউ’তে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপযাপন
  • আমেরিকান কর্ণার খুলনা-এর উদ্যেগে আন্তজার্তিক মানবাধিকার দিবস পালিত
  • কলারোয়ার সিংগা হাইস্কুলে ইংরেজি শিক্ষা বিষয়ক কর্মশালা
  • ইবির ভর্তি পরীক্ষায় ঢাবি শিক্ষার্থীসহ আটক ২
  • জানুয়ারিতে এমপিওভুক্ত হচ্ছেন চার হাজার শিক্ষক