এক মাসের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম বেড়ে দ্বিগুণ

peyaj
Share Button

অনলাইন ডেস্ক :: পেঁয়াজের দাম বেড়েই চলছে। এক মাসের ব্যবধানে দেশি ও আমদানি করা পেঁয়াজের দাম বেড়েছে দ্বিগুণ। শুক্রবার রাজধানীর ভিবিন্ন বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে। বৃষ্টি ও আমদানি মূল্য বৃদ্ধির কারণে পেঁয়াজের দাম বাড়ছে বলে অনেক ব্যবসায়ী দাবি করছেন। তবে এই বিষয়কে নিছক অজুহাত হিসেবে দেখছেন ক্রেতারা।

খুচরা ব্যবসায়ীরা বলছেন, বড় ব্যবসায়ীরা বৃষ্টির অজুহাতে দেশি পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন। তাদের অজুহাত বৃষ্টিতে কিছু পেঁয়াজ নষ্ট হয়েছে এবং কিছু খেতও নষ্ট হয়েছে।

তবে দেশে বৃষ্টিতে পেঁয়াজের তেমন কোনো ক্ষতির খবর এখনো পাওয়া যায়নি। মূলত আমদানি করা পেঁয়াজের দাম বাড়ার অজুহাতে মুনাফারলোভী ব্যবসায়ীরা দেশি পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন বলে অভিযোগ ক্রেতাদের।

বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বাজার ও মান ভেদে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৭৫ টাকায়। যা গত সপ্তাহে ছিল ৫০ থেকে ৫৫ টাকা কেজি। অর্থৎ এক সপ্তাহের ব্যবধানে দেশি পেঁয়াজের দাম কেজিতে বেড়েছে ২০ টাকার ওপর। আর এক মাসের হিসেবে দেশি পেঁয়াজের দাম কেজিতে বেড়েছে প্রায় ৪০ টাকা। সেপ্টেম্বরের শেষের দিকেও প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৩৫ থেকে ৪০ টাকায়।

এ দিকে আমদানি করা পেঁয়াজের মধ্যে খোসা ওঠা বড় আকারের ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকায়। আর ছোট আকারের পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে। এক সপ্তাহ আগেও এই পেঁয়াজের দাম ছিল ৪০ থেকে ৪৫ টাকা। আর সেপ্টেম্বর মাসে আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজি দরে।

কারওয়ানবাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা তেজগাঁওয়ের বাসিন্দা মো. ইয়াসিন বলেন, ‘গত মাসে এক পাল্লা (৫ কেজি) দেশি পেঁয়াজ কিনেছি ১৭৫ টাকা দিয়ে। এখন সেই পেঁয়াজের দাম চাচ্ছে ৩২৫ টাকা। এক মাসের ব্যবধানেই পেঁয়াজের দাম বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বৃষ্টি ও আমদানির কারণে দাম বাড়ছে। আসলে এগুলো কিছু নয়। আমদানি খরচ এক টাকা বাড়লে এটা আমাদের কাছ থেকে ৭ টাকা আদায় করার ধান্দায় থাকে।’

কারওয়ানবাজারের আরকে ক্রেতা আশেয়া বেগম বলেন, গত সপ্তাহে এক কেজি পেঁয়াজ কিনেছিলাম ৫৫ টাকা দিয়ে। এখন সেই পেঁয়াজের দাম চাচ্ছে ৭০ টাকা।

কারওয়ানবাজারের ব্যবসায়ী মো. হাসান বলেন, দুই সপ্তাহ ধরে পেঁয়াজের দাম বেশি। ভারতে পেঁয়াজের দাম বাড়ার কারণে এই দাম বেড়েছে। ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করতে এখন আগের চেয়ে দ্বিগুণ টাকা লাগছে। ফলে আমাদের বাজারেও আমাদানি করা পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। আর ভারতে দাম বাড়লে স্বাভাবিকভাবেই আমাদের দেশি পণ্যেরও দাম বেড়ে যায়। তাই দেশি পেঁয়াজেরও দাম বেড়েছে। তবে আমদানি করা পেঁয়াজের দাম যে হারে বেড়েছে, দেশি পেয়াজের দাম সে হারে বাড়েনি।

খিলগাঁও তালতলা বাজারের ব্যবসায়ী মো. আনোয়ার বলেন, বড় ব্যবসায়ীরা আমদানি খরচ বেড়ে যাওয়া এবং বৃষ্টিতে কিছু পেঁয়াজ নষ্ট হওয়ার অজুহাত দেখিয়ে দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন। আমদানি খরচ কিছুটা বেড়েছে এটা সত্য, সে জন্য আমদানি করা পেঁয়াজের দাম কিছুটা বাড়তে পারে। কিন্তু দেশি পেঁয়াজের দাম বাড়বে কেন? এ সব বড় ব্যবসায়ীদের চক্রান্ত। বৃষ্টিতে পেঁয়াজের তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি। অতিরিক্তি মুনাফা করতে দেশি পেঁয়াজের দাম বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। কারণ বাজারে দেশি পেঁয়াজের চাহিদা বেশি।






সঙ্গতিপূর্ণ আরো খবর

  • মেলায় ২২১৭ কোটি টাকা আয়কর আদায়
  • ‘সিলেট তামাবিল স্থলবন্দর চালু হওয়াতে মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হবে’
  • “ইসলামিক ব্যাংকিং এ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা” শীর্ষক দিনব্যাপী প্রশিক্ষন র্কমশালা
  • অর্থনীতিতে নোবেল পেলেন মার্কিন অর্থনীতিবিদ
  • কারখানা স্থাপনে অনুমোদন মিলবে দুই মাসেই
  • নাগালের বাইরে মাছ, মাংস, সবজির বাজার
  • ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে ৪৫০ কোটি ডলারের চুক্তি স্বাক্ষর