পুলিশ সপ্তাহ শুরু হচ্ছে আজ

psm20180108082507
Share Button

সাতক্ষীরা নিউজ ডেস্ক ::
‘জঙ্গি মাদকের প্রতিকার, বাংলাদেশ পুলিশের অঙ্গীকার’ প্রতিপাদ্য নিয়ে আজ সোমবার (৮ জানুয়ারি) শুরু হচ্ছে পাঁচ দিনের পুলিশ সপ্তাহ। আজ সকালে রাজারবাগ পুলিশ লাইনস মাঠে বর্ণাঢ্য পুলিশ প্যারেডের মধ্য দিয়ে এই আয়োজন উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ সময় সারাদেশের বিভিন্ন পুলিশ ইউনিটের সদস্যদের সমন্বয়ে গঠিত ১১টি কন্টিনজেন্ট ও পতাকাবাহী দলের নয়নাভিরাম প্যারেড পরিদর্শন ও অভিবাদন গ্রহণ করবেন তিনি। পাশাপাশি ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশে ভাষণ রাখবেন ও পদক প্রদান করবেন।

প্রথমবারের মতো এবারের পুলিশ সপ্তাহে সরাসরি অংশ নিচ্ছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। সোমবার রাতে রাজারবাগে ঊর্ধ্বতন পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশে ভাষণ ও নৈশভোজে অংশ নেবেন তিনি।

রাষ্ট্রপতি ইতোমধ্যে পুলিশ সপ্তাহ উপলক্ষ্যে বাণী দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘বাংলাদেশ পুলিশ দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও জননিরাপত্তা বিধানে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান। ‘শৃঙ্খলা নিরাপত্তা প্রগতি’ মন্ত্রে দীক্ষিত বাংলাদেশ পুলিশের প্রত্যেক সদস্য দেশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাসহ আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় অনবদ্য ভূমিকা রাখছে।

সাম্প্রতিক সময়ে জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশ পুলিশের অনন্য ভূমিকা দেশ-বিদেশে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। মাদকের বিস্তার রোধ ও সাইবার ক্রাইমের মতো অপরাধ দমনেও পুলিশ যথেষ্ট সফলতার পরিচয় দিয়ে যাচ্ছে। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, সাফল্যের এ ধারা অব্যাহত রেখে আমাদের প্রিয় মাতৃভূমিকে মাদক, জঙ্গি ও সন্ত্রাসমুক্ত রাখতে পুলিশ সদস্যরা পেশাদারিত্বের প্রমাণ দিয়ে যাবেন।’

জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ দমনে পুলিশের সাফল্য দেশ-বিদেশে ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হওয়ার কথা তুলে ধরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও। তিনি নিজের বাণীতে বলেছেন, ‘মহান মুক্তিযুদ্ধে অপরিসীম ত্যাগ ও বীরত্বগাঁথার ইতিহাসকে ধারণ করে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী সগৌরবে এগিয়ে চলেছে। দেশের অভ্যন্তরীণ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষা, অপরাধ দমন এবং গণতন্ত্র ও মানবাধিকার সমুন্নত রাখতে এই বাহিনী উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করছে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ পুলিশের গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা বিশ্ব দরবারে দেশের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল করেছে। জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ দমনে আমরা পুলিশ এন্টি-টেরোরিজম ইউনিট গঠন করেছি। বিভিন্ন ইউনিটে প্রতিনিয়ত নারীর অন্তর্ভুক্তি বাড়ানো হচ্ছে।’

বাণীতে প্রধানমন্ত্রী জানান— আওয়ামী লীগ সরকার বাংলাদেশ পুলিশকে একটি দক্ষ, জনবান্ধব ও প্রতিশ্রুতিশীল বাহিনীতে উন্নীত করার লক্ষ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এর মধ্যে রয়েছে পুলিশের জনবল বৃদ্ধি, প্রযুক্তির সংযোজন, যুগোপযোগী প্রশিক্ষণ, বিশেষায়িত নতুন নতুন ইউনিট গঠনসহ বিদ্যমান বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে কার্যকরি উদ্যোগ।

পুলিশ সপ্তাহ উপলক্ষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন আর পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) একেএম শহীদুল হকও পৃথক বাণী দিয়েছেন।

আগামী ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত চলমান পুলিশ সপ্তাহে ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীদের সঙ্গে পৃথক সম্মেলনসহ মাঠপর্যায়ের পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন আইজিপি।

২০১৭ সালে পুলিশ বাহিনীর সদস্যদের অসীম সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতি হিসেবে এবার ১৮২ জন সদস্যকে দেওয়া হচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ মেডেল (বিপিএম) ও প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল (পিপিএম)।

এবার ৩০ জন পুলিশ সদস্য বিপিএম-সাহসিকতা, ৭১ জন পিপিএম সাহসকিতা, গুরুত্বপূর্ণ মামলার রহস্য উদ্ঘাটন, অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, দক্ষতা, কর্তব্যনিষ্ঠা, সততা ও শৃঙ্খলামূলক আচরণের মাধ্যমে প্রশংসনীয় অবদানের জন্য ২৮ জন পুলিশ সদস্য বিপিএম সেবা ও ৫৩ জন পাবেন পিপিএম সেবা পদক।

জঙ্গি ও সন্ত্রাস মোকাবিলায় শহীদ লে. কর্নেল আবুল কালাম আজাদ, ইন্সপেক্টর মরহুম চৌধুরী মো. আবু কয়ছর ও ইন্সপেক্টর মরহুম মোহাম্মদ মনিরুল ইসলামকে বিপিএম-মরণোত্তর পদক প্রদান করা হবে।






সঙ্গতিপূর্ণ আরো খবর

  • প্রধানমন্ত্রী ও প্রণব মুখার্জির সৌজন্য সাক্ষাৎ
  • ঢাকায় প্রণব: রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন
  • মনোনয়ন ফরম কিনলেন তাবিথ আউয়ালসহ ৫ জন
  • কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হবে : অর্থমন্ত্রী
  • আখেরি মোনাজাত শেষ, মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনা
  • ঢাকা ছাড়লেন মাওলানা সা’দ
  • সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে: প্রধানমন্ত্রী
  • বিশ্ব ইজতেমা আজ শুরু