শিক্ষক-কর্মচারীদের আমরণ অনশন কর্মসূচি প্রত্যাহার

teacher-20180105172419
Share Button

সাতক্ষীরা নিউজ ডেস্ক :: প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসে নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের আমরণ অনশন কর্মসূচি প্রত্যাহার করা হয়েছে। শুক্রবার বিকাল সাড়ে চারটার দিকে এই ঘোষণা দেওয়া হয়।

এর আগে বিকল্পধারার সভাপতি ও সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেছেন, দাবি আদায়ে আমরণ অনশনে বসে অনেক শিক্ষক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এ দৃশ্য দেখা শুধু আমার নয়, জাতির জন্যও লজ্জার। এখন দেখার সরকার আদৌ লজ্জা পায় কিনা। শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের আমরণ অনশন কর্মসূচিতে সংহতি জানিয়ে তিনি একথা বলেন।

বি. চৌধুরী বলেন, ‘আজ শিক্ষকদের থাকার কথা ছিল ক্লাস রুমে। অথচ তারা বেতনের জন্য আজ রাস্তায় দিন পার করছেন। এটা জাতির জন্য দুঃখ ও হতাশার।’

বিকল্পধারা ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ এসে শিক্ষকদের আমরণ অনশনে সংহতি প্রকাশ করছেন। শুক্রবার সংহতি প্রকাশ করেন জাসদের সাধারণ সম্পাদক শিরিন আখতার এমপি, মাধ্যমিক স্কুল শিক্ষক সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা এস এম আব্দুল জলিল, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি গোলাম মোস্তাফা প্রমুখ।

এদিকে ‘জীবন গেলেও দাবি পূরণ ছাড়া এখান থেকে যাবো না। ন্যায্য দাবিতে খোলা আকাশের নিচে শীতের মধ্যে আমরণ অনশন করে যাচ্ছি’ বলে মন্তব্য করেছেন নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি গোলাম মাহমুদুন্নবী।

শুক্রবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি। এমপিওভুক্তির দাবিতে ষষ্ঠ দিনের মতো আমরণ অনশন পালন করছেন নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা।

মাহমুদুন্নবী বলেন, অনেক শিক্ষক-কর্মচারী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তবুও সরকার আমাদের দিকে তাকাচ্ছে না। শিক্ষামন্ত্রী আমাদের এখানে আসায় আমরা তাকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছি। কিন্তু তার বক্তব্য সুস্পষ্ট না হওয়ায় অনশনরত শিক্ষকরা তার আশ্বাস প্রত্যাখ্যান করেছেন। তবে এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস পেলেই ঘরে ফিরবেন শিক্ষকরা।

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা পাঁচ হাজার ২৪২টি। এসব প্রতিষ্ঠানে এক দশকেরও বেশি সময় থেকে বিনা বেতনে পাঠদান করছেন এমন শিক্ষকের সংখ্যা প্রায় ৭৫-৮০ হাজার। আমরণ অনশন চলাকালে ছয়দিনে ১১৪জন শিক্ষক অসুস্থ হয়েছেন। এরমধ্যে ঢাকা মেডিকেলে ১৬ জন শিক্ষক ভর্তি আছেন।

এই শিক্ষক নেতা বলেন, সর্বশেষ ২০১০ সালে আওয়ামী লীগ সরকার এক হাজার ৬২৪টি বেসরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজকে এমপিওভুক্ত করে। “তহবিল সংকট” দেখিয়ে তখন বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানকে আর এমপিওভুক্ত করা হয়নি। বাদ পড়া শিক্ষকরা তখন থেকেই বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছেন। কিন্তু তারা মানবেতর জীবনযাপন করলেও সরকার তাদের দিকে সুদৃষ্টি দিচ্ছে না।






সঙ্গতিপূর্ণ আরো খবর

  • প্রধানমন্ত্রী ও প্রণব মুখার্জির সৌজন্য সাক্ষাৎ
  • ঢাকায় প্রণব: রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন
  • মনোনয়ন ফরম কিনলেন তাবিথ আউয়ালসহ ৫ জন
  • কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হবে : অর্থমন্ত্রী
  • আখেরি মোনাজাত শেষ, মুসলিম উম্মাহর শান্তি কামনা
  • ঢাকা ছাড়লেন মাওলানা সা’দ
  • সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে: প্রধানমন্ত্রী
  • বিশ্ব ইজতেমা আজ শুরু