সরকারের বিদায়ের দিন গণনা শুরু হয়েছে: রিজভী

rizvi-1
Share Button

অনলাইন ডেস্ক :: বর্তমান সরকারের বিদায়ের দিন গণনা শুরু হয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

শনিবার রাজধানীর নয়াপল্টনস্থ বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, বিনা ভোটের সরকারের বিদায়ের দিন গণনা শুরু হয়ে গেছে। ২০১৮ সাল দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বাংলাদেশের মানুষের অধিকার ফিরে পাবার বছর, কলঙ্ক মোচনের বছর। ২০১৮ সালে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে গণতন্ত্রের বিজয় পতাকা উড়বে মানুষের ঘরে ঘরে।

তিনি বলেন, জনগণের অগ্রযাত্রা আওয়ামী লীগ আর বলপ্রয়োগে প্রতিহত করতে পারবে না। শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনের কথা বলা আপনাদের জন্য হবে অরণ্যে রোদন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের কাদেররের বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগের পরিণতি কী হবে এটা অনুধাবণ করেই ওবায়দুল কাদের সাহেবরা হুমকি আর ধমকের পথ অবলম্বন করেছেন। ওবায়দুল কাদের সাহেবের উদ্দেশ্যে বলতে চাই-অতি ক্ষমতা, অতি দম্ভ, অতি দুর্নীতি, অতি নিপীড়ন-নির্যাতন, অতি অস্ত্রের আস্ফালন এবং অতি মিথ্যাচারে আপনারা নিজেরাই অতিকায় ডাইনোসরে পরিণত হয়েছেন। সুতরাং আপনারাই প্রাণীকূল থেকে অতি শীঘ্রই অবলুপ্ত হয়ে যাবেন।

‘সময় কারো জন্য অপেক্ষা করে না। নির্বাচনও বিএনপি’র জন্য অপেক্ষা করবে না’ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের এ বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে রিজভী বলেন, ওবায়দুল কাদের এসব ফাঁকা বুলি দিয়ে নিজের পদকে নিরাপদ করছেন। আওয়ামী লীগ এখন ভাঙ্গা কলসি। আর ভাঙ্গা কলসিই বাজে বেশি। ভয় দেখিয়ে, রক্ত ঝরিয়ে, জনগণের বিরুদ্ধে বন্দুক ব্যবহার করে ক্ষমতায় থাকার মজাতে জনগণের কথার আওয়াজ আপনাদের কানে ঢোকে না। কাদের সাহেব আপনি ঠিকই বলেছেন সময় কারো জন্য অপেক্ষা করে না। দুঃশাসন বিদায়ের সময় চলে এসেছে। প্রতিবাদী জনগোষ্ঠী আজ লুটেরাদের বিরুদ্ধে জেগে উঠেছে।

বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, অনেকেরই জ্বর সেরে যায়, কিন্তু আওয়ামী নেতাদের জ্বর সারে না, ক্ষমতার জ্বরের তীব্র মাত্রায় এরা প্রলাপ বকতে থাকে।

তিনি অভিযোগ করেন, গতকাল দেশব্যাপী গণতন্ত্র হত্যা দিবস পালনকালে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও ছাত্রলীগ-যুবলীগের সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়েছে। কোন কোন স্থানে বাধা দিয়ে কালো পতাকা মিছিল পন্ড করে দেয়ার অপচেষ্টা করেছে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও ক্ষমতাসীন দলের সন্ত্রাসীদের হামলায় আহত হয়েছেন শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মী। পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে অর্ধ-শতাধিক নেতাকর্মীকে। ময়মনসিংহের গৌরিপুরে গণতন্ত্র হত্যা দিবস উপলক্ষে কালো পতাকা মিছিলে পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর বেধড়ক লাঠিচার্জ করে। এসময় উপজেলা চেয়ারম্যান আহমেদ তায়েবুর রহমান হিরনসহ ১০ জন বিএনপি নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

দেশব্যাপী গণতন্ত্র হত্যা দিবস উপলক্ষে বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদেরকে গ্রেপ্তারের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান তিনি। একই সাথে অবিলম্বে তাদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত বানোয়াট মামলা প্রত্যাহার ও তাদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান রিজভী।






সঙ্গতিপূর্ণ আরো খবর

  • রাতে জানা যাবে আ.লীগের প্রার্থীর নাম
  • বাতাসে আবারও ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে : ওবায়দুল কাদের
  • আ.লীগ নেতা হত্যা মামলায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড
  • মেয়র পদে বিএনপির ফরম নিলেন পাঁচ জন
  • নির্বাচনকালীন সরকারব্যবস্থা সংবিধানে নেই : মওদুদ
  • প্রধানমন্ত্রী গণতন্ত্রের ওপর বিষাক্ত তীর নিক্ষেপ করেছেন: ফখরুল
  • দলীয় না হলেও সমমনা কাউকেই মনোনয়ন দেবে আ’লীগ : ওবায়দুল কাদের
  • আ.লীগ নিজেদের চক্রান্তজালে নিজেরাই আটকা পড়বে: রিজভী