রাজশাহীকে হারিয়ে শেষটা রাঙালো চিটাগং

Share Button

ক্রীড়া ডেস্ক :: বিপিএলের চলতি আসর থেকে আগেই বাদ পরেছে চিটাগং ভাইকিংস ও রাজশাহী কিংস। শেষ ম্যাচে তাই বড় কিছু পাওয়ার তাড়া ছিল খুব সামান্যই। তারপরও শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে দুই দল লড়ল শেষ পর্যন্ত।

রান উৎসব করেছে চিটাগং ভাইকিংস। সেই রান তাড়া করতে নেমে লড়াই করেছে রাজশাহী কিংস। কিন্তু পথ হারিয়ে ম্যাচও শেষ পর্যন্ত হেরেছে গতবারের রানার্স-আপরা।

দুই দলেরই এ ম্যাচে পাওয়া ছিল খুব সামান্য। কারণ ১১ ম্যাচে মাত্র ২ জয়ে ৫ পয়েন্ট নিয়ে সবার নিচে চিটাগং ভাইকিংস। জিতে ২ পয়েন্ট নিলেও তলানিতেই থাকবে দলটি! সেটাই হলো। রাজশাহী কিংসকে ৪৫ রানে হারিয়ে তৃতীয় জয় নিয়ে চিটাগংয়ের পয়েন্ট হল ৭। আর ১২ ম্যাচে ৪ জয়ে ৮ পয়েন্ট নিয়ে ষষ্ঠ স্থানে থেকে টুর্নামেন্ট শেষ করল কিংসরা।

টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে ১৯৪ রান সংগ্রহ করে চিটাগং ভাইকিংস। জবাবে ৯ উইকেটে ১৪৯ রানে থামে রাজশাহীর ইনিংস।

বড় সংগ্রহ পেতে চিটাগংয়ের হয়ে আবারও ব্যাট হাতে দাঁড়িয়ে যান লুক রনকি। নিউজিল্যান্ডের প্রাক্তন এ ক্রিকেটার ৩০ বলে ৩ ছক্কা ও ৪ চারে করেন ৪২ রান। উদ্বোধনী জুটিতে তাকে সঙ্গ দেন লুইস রিচ। অষ্টম ওভারের পঞ্চম বলে মেহেদী হাসান মিরাজের বলে রনকি আউট হলে স্বস্তি পায় রাজশাহী শিবির। ক্রিজে এসে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি সৌম্য সরকার। ১৬ বলে ১৭ রান করে মিরাজের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন সৌম্য।

ততক্ষণে পুরোপুরি সেট রিচ। থিতু হয়ে তাণ্ডব চালানো শুরু করেন বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যান। ইনিংসের শুরু থেকে যে ধারাবাহিকতায় শুরু করেছিলেন তা শেষ পর্যন্ত ধরে রাখেন। ৫৬ বলে ৪ চার ও ৩ ছক্কায় ৮০ রান করেন রিচ। তাকে তৃতীয় উইকেটে সঙ্গ দেন সিকান্দার রাজা। ২০ বলে ৩ ছক্কা ও ৩ চারে ৪২ রান করেন তিনি।

শেষ দিকে মাত্র ৪৩ বলে ৮৬ রানের জুটি গড়েন চিটাগংয়ের এ দুই বিদেশি ব্যাটসম্যান।

১৯৫ রান তাড়া করে জয়ের জন্য ওভার প্রতি প্রায় দশ রান করে তোলার দরকার ছিল রাজশাহী কিংসের। কিন্তু পাওয়ার প্লে’র ছয় ওভারেও ১০ উপর রান তুলতে পারেনি তারা। রনি তালুকদার (৬) ও মুমিনুল হক (৯) ভালো করতে না পারলেও ব্যতিক্রম ছিলেন সামিত পাটেল। ডানহাতি এ ব্যাটসম্যান ২৬ বলে ৬২ রান করে রাজশাহীর হয়ে একাই লড়াই করে যান। ৬টি চার ও ৫টি ছক্কায় ২৩৮.৪৬ স্ট্রাইক রেটে রান তুলেন পাটেল।

কিন্তু রিচের করা দশম ওভারের দ্বিতীয় বলে পাটেল ফিরে যাওয়ার পর বেশিদূর যায়নি রাজশাহীর ইনিংস। পরপর দুবার জোড়া উইকেট নিয়ে রাজশাহীর মিডল অর্ডার ভেঙে দেন সিকান্দার রাজা। মাত্র ১৬ রানে ৪ উইকেট নেন ডানহাতি এ অফস্পিনার।

পাটেলের পর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৯ রান করেন জাকির হাসান। ১৭ রান আসে জেমস ফ্রাঙ্কলিনের ব্যাট থেকে। মুশফিকুর রহিম করেন ১৫ রান।

সিকান্দার রাজার ৫ উইকেট নেওয়ার সুযোগ ছিল। কিন্তু মুস্তাফিজ ও অনিক প্রতিরোধ গড়ায় শেষ উইকেট হারায়নি রাজশাহী।

একটি জায়গায় স্বস্তি পেতে পারে চিটাগং ভাইকিংস। দুই দলের মুখোমুখি লড়াইয়ের প্রথমটিতে জিতেছিল রাজশাহী। আজ মিরপুরে প্রতিশোধ নিয়ে অন্তত টুর্নামেন্ট শেষ করতে পারল রনকি-রাজারা।



(পরবর্তী সংবাদ) »



সঙ্গতিপূর্ণ আরো খবর

  • শ্যামনগর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জাতীয় ফুটবলার রানাকে সন্মাননা স্মরক প্রদান
  • কাদাকাটিতে নক-আউট ক্রিকেট টুর্ণামেন্ট উদ্বোধন
  • রিয়ালের জয়, রোনালদোর ইতিহাস
  • রিয়ালকে সতর্ক করলেন ডি মারিয়া
  • টি-টোয়েন্টিতেও নেই সাকিব
  • রিয়ালে আগ্রহ নেই লেভানডোস্কির
  • বুধহাটায় বাবলা স্মৃতি ক্রিকেট টুর্ণামেন্টে কুল্যা ক্রিকেট একাদশ চ্যাম্পিয়ন
  • জীবনের সেরা বোলিং করলেন মোস্তাফিজ