আশাশুনির বুধহাটা বাজারে সড়ক দখলের প্রতিযোগিতা অপ্রতিরোধ্য

Share Button

আশাশুনি (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি ::
আশাশুনি উপজেলার প্রাণকেন্দ্র বুধহাটা বাজারের অভ্যান্তরিন সড়কগুলো দখল প্রতিযোগিতা অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠায় ব্যবসায়ী ও সর্ব সাধারণের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে কার্যকর পদক্ষেপ না নেওয়ায় ভুক্তভোগিদের মাঝে উত্তেজনা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

বিশেষ করে কলেজিয়েট স্কুলের সামনের সড়কে এক সাথে একাধিক ট্রাক, ভ্যান দাড় করিয়ে সার লোড- আনলোডিং করা এবং অন্যান্য যানবাহন যেতে না পারা ও সাথে সাথে স্কুলের শিক্ষার্থী পথচারীদের ভিড়ে সড়কটি ভয়াবহ জট ও দুর্ঘটনার কবলে পড়ছে।

উপজেলার বৃহত্তর ও ব্যস্ততম মোকাম বুধহাটা বাজার প্রতিদিন ভোর থেকে রাত্র ১১/১২ টা পর্যন্ত চালু থাকে। হাজার হাজার দোকান পাট, মিল কারখানা ও প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে বাজারে।

আশাশুনি উপজেলাসহ পার্শ্ববর্তী সাতক্ষীরা সদর, পাইকগাছা, দেবহাটা, কালিগঞ্জ ও তালা উপজেলার অনেক ইউনিয়নের মানুষ প্রতিদিন মালামাল ক্রয়-বিক্রয় ও প্রয়োজনীয় কাজে বাজারে এসে থাকেন।

পাইকারী মোকাম হিসাবে বাজারের শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও মিল কারখানার কদর রয়েছে। বাজারের মধ্যে রয়েছে একটি প্রধান সড়কসহ অনেকগুলো অভ্যন্তরিন সড়ক।

এসব সড়কে প্রতিদিনি হাজার হাজার মানুষের যাতয়াতের সাথে সাথে ভ্যান, সাইকেল, মটর সাইকেল, ইজিবাইক, ইঞ্জিনভ্যান, মাইক্রো ইত্যাদি চলাচল করে থাকে।

এছাড়া মালামাল আনা নেওয়ার জন্য পিকআপ, ট্রাকসহ অন্য যানবাহনের চলাচল রয়েছে। এতটা ব্যস্ততম সড়ক হওয়ার পরও সকল সড়কগুলোতে স্থায়ী দোকানকে স¤প্রসারণ, ছোট ছোট স্টল বসানো হয়েছে। রয়েছে ফুটপাতে জামা কাপড়ের দোকান, ভাজার দোকান, মুরগি-পোলট্রি বিক্রয়সহ বিভিন্ন দোকান।

কাচা বাজারের চাদনীসেট রেখে সামনের সড়ক দখলে নিয়ে চালু রয়েছে রাস্তা দখলে নিয়ে চটফড়িয়ার মত করে দোকান। আছে চাউল, পান, আখ, মাছ ও ফল-ফলাদির দোকান। এক কথায় বলতে গেলে বাজারের প্রায় সকল সড়কে রয়েছে দখলের হিড়িক। ফলে সড়কগুলো সংকীর্ণ হয়ে পড়ায় মানুষের ভোগান্তি চরম আকার ধারণ করেছে।

কেবল সড়ক দখল নয়, অধিকাংশ দোকানিরা রোদ-বৃষ্টির হাত থেকে বাঁচার জন্য উপরে পলিথিন পেপার, চট বা অন্য কিছু দিয়ে সড়ক জুড়ে ছাউনি দিয়ে রেখেছে। এতে যানবাহন বা মালামাল বহনের কাজে ব্যব্হৃত গাড়ীগুলো ছাউনিতে আটকে যাওয়া নিয়ে প্রতিনিয়ত দ্ব›দ্ব-ফাসাদ লেগেই থাকে। ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার ব্যবহার নিয়েও রয়েছে জটিলতা।

অবৈধ সড়ক দখলের ফলে এবং রোডের উপর ছাউনির কারণে ক্যামেরা গুলো সড়কের ছবি গ্রহনে ব্যর্থ হচ্ছে। এতে সড়কগুলো অরক্ষিত থেকে যাচ্ছে। ইউপি চেয়ারম্যান ও বাজার কমিটির সভাপতি ইঞ্জিঃ আ ব ম মোছাদ্দেক বলেন, সড়ক ও ড্রেন নির্মান, বাজারের উন্নয়ন এবং আইন শৃংখলা রক্ষার জন্য ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা স্থাপনসহ অনেক কিছু করেছি।

আরও অনেক কিছু করার দরকার। কিন্তু ব্যবসায়ীরা বা সংশ্লিষ্টরা প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করায় সেটি বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। অবৈধ সড়ক দখল, সড়কে ছাউনি দিয়ে ক্যামেরায় ছবি নিতে বাধা সৃষ্টি ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা রক্ষায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি প্রতিরোধে তিনি প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন।






সঙ্গতিপূর্ণ আরো খবর

  • ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের বহিষ্কারের দাতিতে সংবাদ সম্মেলন
  • আশাশুনিতে উপজেলা বিএনপি সভাপতিসহ গ্রেফতার ৪
  • আশাশুনি প্রেসক্লাবে নাহিদ রানার সংবাদ সম্মেলন
  • আশাশুনির আনুলিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন
  • আশাশুনি ৭ প্রতিষ্ঠানে এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ৭৫০ জন
  • বুধহাটা প্রেসক্লাবে শিক্ষক আশরাফুলের সংবাদ সম্মেলন
  • আশাশুনিতে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের উদ্বোধন
  • আশাশুনিতে সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণের সমাপনী অনুষ্ঠান