বেগম জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে অবহেলা করা হচ্ছে: রিজভী

Share Button

অনলাইন ডেস্ক :: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. আসাদুজ্জামান খান কামাল গতকাল বলেছেন, কারাগারে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া যে পড়ে গিয়েছিলেন সেই সম্পর্কে কারা কর্তৃপক্ষ অবগত নয়, দেশনেত্রী চিকিৎসা ও অসুস্থতা নিয়ে কতটা অবহেলা করা হচ্ছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যে সেটা পরিস্কার হয়ে গেল বলে মন্তব্য করলেন বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী আহমেদ ।

রবিবার (১০জুন) সকালে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন এসব কথা বলেন তিনি।

রিজভী অভিযোগ করে বলেন, কারা কর্তৃপক্ষ সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করছে বলেই বন্দী খালেদা জিয়ার গুরুতর শারীরিক অসুস্থার বিষয়ে ভ্রুক্ষেপহীন থেকেছে-সেটিই প্রমানিত হলো স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের মধ্য দিয়ে। দেশনেত্রী কারাগারে অজ্ঞান হয়ে ৫-৭ মিনিট পড়েছিলেন, অথচ সেটি কারাকর্তৃপক্ষ জানে না, তার মানে এটাই প্রমানিত হয়-বেগম জিয়া কারাকর্তৃপক্ষের কতখানি অবহেলার শিকার। সরকার বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রতি কতটা অমানবিক তা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যে ফুটে ওঠেছে। আমরা বারবার দেশনেত্রী অসুস্থতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করলেও এবং ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা তাঁর কোন কোন বিষয়ে জরুরি চিকিৎসা দরকার সে বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে আহবান জানালেও সরকার এবং কারাকর্তৃপক্ষ সব সময় এড়িয়ে চলছে, এ বিষয়ে এখনও তারা কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি।

তিনি বলেন, দেশনেত্রীর স্বাস্থ্যের অবস্থা জেনে শুধু বিএনপিই নয় সারাদেশবাসীও গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। ঘটনা শোনার সাথে সাথে তাৎক্ষনিক বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসার কোন ব্যবস্থা না করে বিষয়টি নিয়ে এখনও সরকার বা কারাকর্তৃপক্ষ অবগত নয় বলে যে কথা বলা হয়েছে সেটি দেশনেত্রীর অসুস্থতাকে আরও গুরুতর করে তাঁকে রাজনৈতিক ময়দান থেকে সরিয়ে দেওয়ার সুগভীর চক্রান্ত কিনা তা নিয়ে মানুষের মনে নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে? স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর গতকালের বক্তব্য দেশনেত্রীর চিকিৎসা নিয়ে টালবাহানারই নামান্তর। তিনি গুরুতর অসুস্থ হওয়া সত্ত্বেও এখনও তাঁকে তাঁর পছন্দ অনুযায়ী বিশেষায়িত হাসপাতালে ভর্তি না করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পিজি হাসপাতালের কথা বলছেন। দেশনেত্রীর ব্যক্তিগত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা দেশনেত্রীর যেসব পরীক্ষা নিরীক্ষার সুপারিশ করেছেন সেগুলো পিজিতে সম্ভব নয়। আধুনিক যন্ত্রপাতির সকল ব্যবস্থা ইউনাটেড হাসপাতালে রয়েছে। অতীতেও আওয়ামী লীগের সভানেত্রীসহ অনেক নেতাকে কারাগারে বন্দী থাকা অবস্থায় প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। তাহলে বেগম খালেদা জিয়াকে তাঁর পছন্দ মতো চিকিৎসা করতে না দেওয়া একজন বন্দীর প্রতি চরম মানবধিকার লঙ্ঘন নয় কী ?

তিনি আরও বলেন, দেশনেত্রীর সঙ্গে গতকাল সাক্ষাৎ শেষে তাঁর ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা যা বলেছেন, যে বর্ণনা দিয়েছেন, তা বেদনাদায়ক। তারা বলেছেন, ৫ই জুন দেশনেত্রী দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় মাথা ঘুরে পড়ে গিয়েছিলেন। সেখানে ৫-৭ মিনিট তিনি অজ্ঞান ছিলেন। বর্তমানে তাঁর যে শারীরিক অবস্থা তাতে দ্রুত চিকিৎসা না দিলে তাঁর বড় ধরণের ক্ষতি হয়ে যেতে পারে। আামরা বারবার তার সুচিকিৎসার দাবি জানিয়ে আসছি। চিকিৎসকরাও সুচিকিৎসার পরামর্শ দিয়ে আসছেন। কিন্তু কারা কর্তৃপক্ষ ও সরকারের পক্ষ থেকে কোনো পদক্ষেপ নেই, কোনো প্রতিকার নেই। সরকারের এহেন নিমর্ম আচরণের আমরা ধিক্কার জানাই। ভোটারবিহীন সরকার একটি মূলত একটি নকল সরকার। নকল কখনও আসলের সমান হতে পারে না। তাই তারা আসল কাজ, ভাল কাজ, মানবিক কাজ করতে পারে না। অসুস্থ, সাজানো মামলায় বন্দী দেশনেত্রীকে নিয়ে তাদের অনঢ়তা, একগুঁয়েমি ও বৈরিতা আরও বেশী মাত্রায় স্পষ্ট হয়ে ওঠেছে।



« (পূর্ববর্তী সংবাদ)



সঙ্গতিপূর্ণ আরো খবর

  • খালেদা জিয়া অন্যের সাহায্য ছাড়া হাঁটতে পারছেন না: ফখরুল
  • সেনা মোতায়েনের পরিস্থিতি হলে সরকার সিদ্ধান্ত নেবে: কাদের
  • সামরিক পরিবারের সদস্য হয়েও সিএমএইচে বিশ্বাস নেই খালেদার: ওবায়দুল
  • চিকিৎসা নয় মূলত রাজনৈতিক ইস্যু খুঁজছে বিএনপি: সেতুমন্ত্রী
  • যথাসময়ে নির্বাচন হবে: প্রধানমন্ত্রী
  • বিএনপির জন্য নির্বাচন থেমে থাকবে না: ওবায়দুল কাদের
  • খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়ার অধিকার আমার নেই: প্রধানমন্ত্রী
  • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ