ঈমানি মৃত্যু লাভে যে দোয়া পড়বেন

Share Button

পৃথিবীর সব প্রাণীকেই একদিন মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে। মৃত্যুর মাধ্যমেই দুনিয়ার সব প্রাণীর অবসান হবে। মানুষ ও জ্বীন জাতিকে পরকালে আল্লাহর আদালতে উপস্থিত হতে হবে।

দুনিয়ার প্রতিটি কাজের হিসাব প্রদান করতে হবে। মৃত্যুর সময় যে বা যারা ঈমানি কালেমা পাঠের মাধ্যমে মৃত্যুবরণ করবে তাদের পরকালীন জীবন হবে সহজ ও সফল।

প্রত্যেক ঈমানদার ব্যক্তি মহান আল্লাহর সৃষ্টি সম্পর্কে চিন্তা-গবেষণা করে। আল্লাহ তাআলার নৈকট্য অর্জনে তাঁর বা তাঁকে নিয়ে চিন্তা-গবেষণার মাধ্যমে ইবাদত-বন্দেগি করার বিকল্প নেই।

যারাই মহান আল্লাহর সৃষ্টি নিয়ে চিন্তা-গবেষণা করে, আল্লাহর সঙ্গে তাদের নিগুঢ় সম্পর্ক তৈরি হয়। আর বান্দা আল্লাহর একান্তি সান্নিধ্য লাভ করে। ফলে তাদের জন্য ঈমানি মৃত্যু লাভে সহায়ক হয়।

মুমিন বান্দাকে যাতে জাহান্নামে যেতে না হয়, জাহান্নামের কঠিন আজাব থেকে মুক্তি পায়, হাশরের ময়দানে লাঞ্ছিত হতে না হয় এবং ঈমানি মৃত্যু লাভ করে সে জন্য আল্লাহ তাআলা কুরআনে তুলে ধরেছেনর একটি দোয়া। যা তুলে ধরা হলো-

رَبَّنَا مَا خَلَقْتَ هَٰذَا بَاطِلًا سُبْحَانَكَ فَقِنَا عَذَابَ النَّارِ – رَبَّنَا إِنَّكَ مَن تُدْخِلِ النَّارَ فَقَدْ أَخْزَيْتَهُ وَمَا لِلظَّالِمِينَ مِنْ أَنصَارٍ – رَّبَّنَا إِنَّنَا سَمِعْنَا مُنَادِيًا يُنَادِي لِلْإِيمَانِ أَنْ آمِنُوا بِرَبِّكُمْ فَآمَنَّا ۚ رَبَّنَا فَاغْفِرْ لَنَا ذُنُوبَنَا وَكَفِّرْ عَنَّا سَيِّئَاتِنَا وَتَوَفَّنَا مَعَ الْأَبْرَارِ

উচ্চারণ : রাব্বানা মা খালাক্বতা হাজা বাত্বিলান, সুব্‌হানাকা ফাক্বিনা আজাবান নার। রাব্বানা ইন্নাকা মান তুদখিলিন নারা ফাক্বাদ্ আখঝাইতাহু ওয়া মা লিজজালিমিনা মিন আংছার। রাব্বানা ইন্নানা সামিনা মুনাদিআই ইউনাদি লিল ঈমানি আন আমিনু বিরাব্বিকুম ফাআমান্না; রাব্বানা ফাগ্ফিরলানা জুনুবানা ওয়া কাফ্‌ফির আন্না সাইয়্যিআতিনা ওয়া তাওয়াফ্‌ফানা মাআল আবরার।’ (সুরা আল-ইমরান : আয়াত ১৯১-১৯৩)

অর্থ : ‘হে আমাদের প্রতিপালক! এসব তুমি (সৃষ্টিজগত) অনর্থক সৃষ্টি করনি। পবিত্রতা তোমারই জন্য। আমাদেরকে তুমি জাহান্নামের শাস্তি থেকে বাঁচাও। হে প্রতিপালক! নিশ্চয়ই তুমি যাকে জাহান্নামে নিক্ষেপ কর তাকে অপমানিত কর। আর যালিমদের জন্য কোনো সাহায্যকারী নেই। হে আমাদের প্রভু! আমরা ঈমান আনার জন্য একজন আহ্বানকারীকে আহ্বান করতে শুনে ঈমান গ্রহণ করেছি। হে আমাদের পালনকর্তা! তুমি আমাদের সব গোনাহ মাফ করে দাও। আমাদের সব দোষ-ত্রুটি দূর করে দাও। আর নেককার লোকদের সাথে আমাদের মৃত্যু দাও।’

পরিশেষে…
মুমিন বান্দাদের মধ্যে যারা বসে, দাঁড়িয়ে ও শুয়ে আল্লাহকে স্মরণ করে এবং আকাশমণ্ডলী ও পৃথিবীর সৃষ্টি সম্পর্কে চিন্তা করে আর আল্লাহর কাছে উপরোল্লেখিত দোয়া করে। তাদের জন্য মৃত্যুকালীণ সময়ে ঈমান লাভ করা সহজ হয়ে যাবে।

এ কারণেই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাহাজ্জুদ নামাজ পড়ার সময় এ আয়াতগুলোসহ সুরা আল-ইমরানের শেষ আয়াত পর্যন্ত তেলাওয়াত করতেন। যা পড়া প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সুন্নাতও বটে।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে উল্লেখিত দোয়া পাঠের মাধ্যমে মৃত্যুর সময় ঈমান লাভ করার তাওফিক দান করুন। প্রিয়নবির আমলে নিজেদের জীবনকে আলোকিত করার তাওফিক দান করুন। আমিন।