যেসব খাবার ত্বককে উজ্জ্বল করে

Share Button

লাইফস্টাইল ডেস্ক :: ত্বকের যত্নে আমরা কত কিনা করি। উপটান, প্রাকৃতিক উপাদান, বিভিন্ন প্যাক ব্যবহার করি। আবার ফলের রস, বিভিন্ন খাবারও ত্বকে লাগাই। কিন্তু এসব ত্বকে না দিয়ে বরং প্রটিনসমৃদ্ধ এসব খাবার খেলেই আমাদের ত্বক ভিতর থেকে সুস্থ থাকবে। তাই দেখে নিন এমন কিছু খাবার যা শরীর সুস্থ রাখার পাশাপাশি আপনার ত্বককে করবে ভিতর থেকে উজ্জ্বল।

টমেটো
টমেটোতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি থাকে। এছাড়া এটি প্রচুর লিকোপিনি সমৃদ্ধ যা টমেটোকে লাল রঙের করে। লিকোপিনি খুবই শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা ত্বকের দাগ, শুষ্কভাব, রোদো পোড়া ভাব দূর করে। টমেটো ত্বককে সব ধরণের ডেমেজ থেকে রক্ষা করে।

তেলজাতীয় মাছ
মাছে রয়েছে বাইয়োটিন, যাতে থাকে প্রচুর ভিটামিন বি। বহু কাজের মধ্যে, এটা শরীরে উপকারী ফ্যাটি অ্যাসিড তৈরি করে এবং অ্যামাইনো এসিড শরীরে শোষণে সহায়তা করে। আর অ্যামাইনো এসিড হল প্রোটিনের ভিত্তি। দেহ গঠনের মূলে রয়েছে প্রোটিন। তাই দেহ এবং ত্বকের সুস্থতার জন্য এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

শাক
শাক প্রচুর পুষ্টি সমৃদ্ধ একটি খবার, যা সুস্থ ত্বকের জন্য খুবই কার্যকর। শাকে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা ত্বকের অকালবার্ধক্য রোধ করে। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ বিভিন্ন শাক কোলাজেন রক্ষণাবেক্ষণ ও সংশ্লেষণে সাহায্য করে। শাকের ভিটামিন সি শরীরে লিপিড তৈরি করে যা ত্বকের ব্রণ দূর করে ও ত্বককে উজ্জ্বল করে।

চাই বীজ
ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড ত্বকের ভিতর থেকে নমনীয় করে তোলে। আর ফ্যাটি এসিডের আদর্শ উৎস হল চাই বীজ এবং আখরোট। যারা নিরামিষ খেতে পছন্দ করেন, তারা মাছের বদলে এ দু’টি খাবার খেয়ে ফ্যাটি এসিডের চাহিদ পুরণ করতে পারবেন।

গাজর
গাজর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বেটা কেরোটিন সমৃদ্ধ যা ত্বককে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। বেটা কেরোটিন শরিরে গিয়ে রেটিনলে পরিণত হয় যা শক্তিশালী ভিটামিন এ তৈরি করে। ভিটামিন এ টিস্যুকে মেরামত ও শরীরের টিস্যু বৃদ্ধি করে। ভিটামিন এ বিভিন্ন ডেমেজ থেকে ত্বককে রক্ষা করে।

মিষ্টি আলু
প্রতিদিনের খাবার তালিকায় রাখার জন্য এটি আদর্শ। এটি শরীরে পানির প্রয়োজন মেটানোর পাশাপাশি ত্বকে আদ্রভাব বজায় রাখতে সাহায্য করে। মিষ্টি আলু ছাড়াও গাজর, পালংশাকের মতো গাঢ় রংয়ের ফলমূল এবং সবজি ত্বকের জন্য উপকারী।

কাজুবাদাম ও সূর্যমুখী ফুলের বীজ
ত্বকের সৌন্দর্য ধরে রাখতে অন্যতম প্রয়োজনীয় উপাদান ভিটামিন ই। আর এই উপাদানে ভরপুর হল কাজুবাদাম এবং সূর্যমুখী ফুলের বীজ। তাছাড়া সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মির কারণে ত্বকের ক্ষতি সারিয়ে তুলতেও দারুণ কাজ করে এই দুটি খাবার।

ব্লুবেরি
ত্বকের যত্নে ব্লুবেরি খুবই উপকারী। শুষ্কভাব, রোদো পোড়া দাগ, বার্ধক্য ও বিভিন্ন ক্ষয় প্রতিরোধ করে ত্বককে উজ্জ্বল করে। ব্লুবেরিতে থাকা ভিটামিন সি ত্বকের নিচে জমে থাকা ময়লা পরিষ্কার করে ও ত্বককে দাগমুক্ত করে।

কমলার রস
ফলের রসের থেকে ভালো ফল খাওয়া। কমলার রস ত্বক আদ্র রাখার পাশাপশি ভিটামিন সি-এর চাহিদাও পূরণ করে। ভিটামিন সি এক ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট তৈরি করে, যা ত্বক সুস্থ রাখে।

দই
অনান্য দুগ্ধজাত দ্রব্যের মত দইও প্রচুর ভিটামিন এ সমৃদ্ধ। ভিটামিন এ ইউভি রশ্মি থেকে ত্বককে রক্ষা করে। ত্বকের নানা যত্ন ছাড়াও থাইরয়েড বা ডায়াবেটিসের জন্য দই খুবই উপকারী। ত্বকের শুষ্কভাব কমাতে দাগ দূর করতে ও ত্বককে উজ্জ্বল করতে দইয়ের তুলনা নেই।

‘কমপ্লেক্স’ খাবার
প্রক্রিয়াজাত ও সাদা ময়দা দিয়ে তৈরি খাবার ত্বকে প্রদাহ তৈরির পাশাপাশি ফুসকুড়িও তৈরি করতে পারে। তাই পাস্তা ও সাদা ভাতের পরিবর্তে বিভিন্ন রকম ‘কমপ্লেক্স’ খাবার, যেমন: যব, মটরশুঁটি-শিম এবং লাল চালের ভাত খাওয়ার অভ্যেস করুন। তাছাড়া এসব খাবারে শর্করার পরিমাণও কম।