এবার ভুয়ো খবর চেনাবে হোয়াটসঅ্যাপ

Share Button

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক :: বলতে বলতে অনেক মিথ্যে নাকি সত্যি হয়ে যায়! মিথ্যে আর ভুয়ো খবর সংক্রান্ত এই মতটি সেই হিটলারের আমল থেকে বেশ জনপ্রিয়। বলা হয়, খোদ অ্যাডলফ হিটলারের হয়ে প্রচারের দায়িত্বে ছিলেন যে মন্ত্রী, সেই জোসেফ গোয়েবলসই এমন বলতেন। তার কথায়, ‘একটি বড় মিথ্যে যদি বারবার বলা হয়, তাহলে একসময় যে বলছে সে নিজেও নাকি তা বিশ্বাস করতে শুরু করে।’ স্মার্টফোনের যুগে হোয়াটসঅ্যাপের ব্যাপারটাও হয়ে দাঁড়িয়েছে ঠিক সেইরকম। যার কুপ্রভাব এড়াতে গত সোমবার থেকে উঠেপড়ে লেগেছে জনপ্রিয় এই চ্যাটিং অ্যাপ কর্তৃপক্ষ। ফেক নিউজ, ভিডিও আর ফটো ভেরিফিকেশনের ব্যবস্থা তো করেছেই। সেই সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপ তার ব্যবহারকারীদের জানাচ্ছে, কোনও ছড়িয়ে পড়া খবর ছড়িয়ে দেওয়ার আগে সাবধান হতে। নিশ্চিত হয়ে তবেই শেয়ার বাটন ক্লিক করতে।

সম্প্রতিই হোয়াটসঅ্যাপে ছড়ানো ভুয়ো খবর বা ফেক নিউজের জেরে অকারণ জনরোষের সৃষ্টি হয়েছে অনেক স্থানে। তার জেরেই এই তড়িঘড়ি ব্যবস্থা গ্রহণ।

মঙ্গলবার ভারতের বিভিন্ন পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়েছে হোয়াটসঅ্যাপ। যাতে বলা হয়েছে, গ্রাহকরা সবাই একসঙ্গে চেষ্টা করলে ভুয়ো খবর রোধ করা সহজেই সম্ভব। এ ব্যাপারে হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ ব্যবহারকারীদের কিছু নির্দেশ মেনে চলতে বলে। বলে যেকোনও খবর ফরওয়ার্ড করার আগে যাচাই করে নিক তারা। কোনও ছবি শেয়ার করার আগেও যাচাই করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে ওই সতর্কতাবার্তায়। এছাড়া, কোনও খবর নিয়ে যদি সন্দেহ থাকে, তাহলে যে ফরওয়ার্ড করেছে, তাকে প্রশ্ন করে জেনে নেওয়া, কোনও খবর অসত্য মনে হলে, সেটা কখনওই ফরওয়ার্ড না করা, ম্যাসেজের লিঙ্ক ভাল করে যাচাই করে নেওয়া, কোনও ওয়েবসাইটের খবরে বানান ভুলের মতো বিষয় চোখে পড়লে তা ফরওয়ার্ড না করা-এমন প্রায় দশদফা নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সেখানে।

এর সঙ্গে অ্যাপ্লিকেশনেও একটি বিশেষ ফিচার যুক্ত করার কথা জানায় হোয়াটসঅ্যাপ। ভুয়ো খবর নিয়ন্ত্রণে ভেরিফিকেশন বাটন। কোনও খবর যদি হোয়াটসঅ্যাপে ছড়িয়ে পড়ে তবে ওই ফিচার সম্মতি দিলে তবেই তা ভাইরাল হবে। না হলে খবর আটকে যাবে শুরুতেই। এরপরও যদি কেউ ভুয়ো মেসেজ পান। তাহলে হোয়াটসঅ্যাপ তা যাচাই করবে। আর তা লাল রং দিয়ে চিহ্নিত করা হবে। একইরকম সতর্কতা অবলম্বন করতে চলেছে আরেক ভিডিও শেয়ারিং সোশ্যাল অ্যাপ ইউটিউবও। তারা জানিয়েছে, ভুয়ো খবর সম্বলিত ভিডিও যাতে ইউটিউবের মাধ্যমে ছড়িয়ে না পড়ে সে ব্যাপারে ব্যবস্থা নেবে তারা।

হোয়াটসঅ্যাপে বিভিন্ন গ্রুপে বা ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট থেকে ভিডিও, ছবি, খবর শেয়ার করার ঘটনা নতুন নয়। সেই সব ছবি না দেখেই অনেকে ফরওয়ার্ড করে দেন পরিচিতদের মধ্যে। এভাবেই ব্যাপকহারে ছড়িয়ে পড়ে বা ভাইরাল হয় কোনও খবর। তা সে ভুয়ো হোক বা সত্যি। তবে সত্যি খবর ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য এক্ষেত্রে হোয়াটসঅ্যাপের ভূমিকা যতখানি ইতিবাচক, ঠিক ততটাই বিপজ্জনক হয়ে ওঠে মিথ্যে খবর ছড়িয়ে পড়লে। তাছাড়া দেশের কোথাও কোনও ঝামেলা হলে, সে সংক্রান্ত উত্তেজক বার্তা ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বেড়ে যায় হিংসাও। সম্প্রতি ছেলেধরা বা বাচ্চা চুরি নিয়ে বেশ কিছু বার্তা হোয়াটসঅ্যাপে ছড়িয়ে পড়ায় যার জেরে সন্দেহের বশে ভারতের বিভিন্ন জায়গায় বহু লোককে পিটিয়ে মেরে ফেলা হয়। এবার সেই ভুয়ো খবর নিয়ন্ত্রণেই উদ্যোগী হল হোয়াটসঅ্যাপ।

প্রসঙ্গত, ছেলে চুরি নিয়ে ভুয়ো খবর ভাইরাল হওয়ার পর ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করে। এধরনের খবর ছড়ানো যদি হোয়াটসঅ্যাপ রোধ না করে, তাহলে কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রক কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করবে বলেও সেই সতর্কবার্তায় বলা হয়।

সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন