মঙ্গলবার, নভেম্বর ২০, ২০১৮

সালমান শাহ মৃত্যুর প্রতিবেদন ১৮ ডিসেম্বর

চিত্রনায়ক সালমান শাহর অপমৃত্যু মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামী ১৮ ডিসেম্বর তারিখ ঠিক করেছেন আদালত। গতকাল রোববার পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) পুনঃতদন্তের প্রতিবেদন দাখিল না করায় ঢাকার মহানগর হাকিম দেবব্রত বিশ্বাস এ দিন ঠিক করে দিয়েছেন।

১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর মারা যান চলচ্চিত্র নায়ক চৌধুরী মোহাম্মদ শাহরিয়ার (ইমন) ওরফে সালমান শাহ। সে সময় এ বিষয়ে অপমৃত্যুর মামলা করেছিলেন তার বাবা কমরউদ্দিন আহমদ চৌধুরী। পরে ১৯৯৭ সালের ২৪ জুলাই ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে অভিযোগ করে মামলাটিকে হত্যা মামলায় রূপান্তরিত করার আবেদন জানান তিনি। অপমৃত্যুর মামলার সঙ্গে হত্যাকাণ্ডের অভিযোগের বিষয়টি এক সঙ্গে তদন্ত করতে সিআইডিকে নির্দেশ দেন আদালত।

৩ নভেম্বর ১৯৯৭ সালের আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয় সিআইডি। চূড়ান্ত প্রতিবেদনে সালমান শাহের মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলে উল্লেখ করা হয়। ২৫ নভেম্বর ঢাকার সিএমএম আদালতে ওই চূড়ান্ত প্রতিবেদন গৃহীত হয়। সিআইডির প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে তার বাবা কমর উদ্দিন আহমদ চৌধুরী রিভিশন মামলা করেন।

২০০৩ সালের ১৯ মে মামলাটি বিচার বিভাগীয় তদন্তে পাঠায় আদালত। এরপর প্রায় ১৫ বছরে মামলাটি বিচার বিভাগীয় তদন্তে ছিল।

২০১৪ সালের ৩ আগস্ট ঢাকার সিএমএম আদালতের বিচারক বিকাশ কুমার সাহার কাছে বিচার বিভাগীয় তদন্তের প্রতিবেদন দাখিল করেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ইমদাদুল হক। এ প্রতিবেদনে সালমান শাহর মৃত্যুকে অপমৃত্যু উল্লেখ করা হয়।

২০১৪ সালের ২১ ডিসেম্বর সালমান শাহর মা নীলা চৌধুরী ছেলের মৃত্যুতে বিচার বিভাগীয় তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেন এবং বিচার বিভাগীয় তদন্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নারাজি দেবেন বলে আবেদন করেন।

২০১৫ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি নীলা চৌধুরী ঢাকা মহানগর হাকিম জাহাঙ্গীর হোসেনের আদালতে বিচার বিভাগীয় তদন্ত প্রতিবেদনের নারাজির আবেদন দাখিল করেন। নারাজি আবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, আজিজ মোহাম্মদ ভাইসহ ১১ জন তার ছেলে সালমান শাহর হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকতে পারেন।

মামলাটিতে র‌্যাব তদন্ত দেওয়ার আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ গত বছরের ১৯ এপ্রিল মহানগর দায়রা জজ আদালতে একটি রিভিশন মামলা করেন। ২০১৬ সালের ২১ আগস্ট ঢাকার বিশেষ জজ-৬ এর বিচারক ইমরুল কায়েস রাষ্ট্রপক্ষের রিভিশনটি মঞ্জুর করেন এবং র‌্যাব মামলাটি আর তদন্ত করতে পারবে না বলে আদেশ দেন।

ঢাবি ‘ঘ’ ইউনিটের পুনঃভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষ সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিটের ১ম বর্ষ স্নাতক সম্মান শ্রেণির পুনঃভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়েছে।

সোমবার বিকেল ৫টায় ফল প্রকাশিত হয়। এই পরীক্ষার বিস্তারিত ফলাফল বিশ্ববিদ্যালয়ের admission.eis.du.ac.bd ওয়েবসাইট থেকে জানা যাবে।

ভর্তি পরীক্ষায় ৬১.১ শতাংশ পাস করেছে। গত শুক্রবার অনুষ্ঠিত এই পরীক্ষায় ১৬ হাজার হাজার ১৮১ জন ভর্তিচ্ছু অংশ নেন। এর মধ্যে পাস করেন ৯ হাজার ৮৮৬ জন। ঘ ইউনিটের অধীনে আসন রয়েছে ১ হাজার ৬১৫টি।

এছাড়া DU GHA লিখে তারপর পরীক্ষার রোল নম্বর লিখে যেকোনে নম্বর থেকে ১৬৩২১ এ এসএমএস করলে ফল জানা যাবে।

পরীক্ষায় পাসকৃতরা আগামী ২০ নভেম্বর হতে ২৭ নভেম্বর পর্যন্ত— নির্ধারিত ওয়েবসাইটে পছন্দের তালিকা পূরণ করতে পারবে। আগামী ৩ ডিসেম্বর বিকেল ৩টায় ওয়েবসাইটে ভর্তির মনোনয়ন দেওয়া হবে এবং সাক্ষাৎকারের তারিখও দেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিটের প্রথম বর্ষের স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির পুনঃভর্তি পরীক্ষা গত শুক্রবার অনুষ্ঠিত হয়। বেলা ৩টা থেকে ৪টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের মোট ১৯টি কেন্দ্রে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত চলে।

আ. লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত, যেকোনো মুহূর্তে ঘোষণা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ৩০০ আসনের জন্য আওয়ামী লীগের প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়েছে। তবে যেসব আসন জোটের শরিক দলগুলোকে দেওয়া হবে সেসব আসন থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে।

মনোনীত অনেক প্রার্থীকে মৌখিকভাবে জানানো শুরু হয়েছে দলের শীর্ষপর্যায় থেকে। দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে থাকা অথবা গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি যাঁরা বাদ পড়ছেন, তাঁদেরও জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে। আওয়ামী লীগের চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকায় থাকা ৫৪ জনের নাম কালের কণ্ঠ’র হাতে এসেছে। তাঁদের মধ্যে নতুন মুখ তিনজন।

এদিকে প্রার্থী মনোনয়নের বিষয়ে সব কিছু গুছিয়ে আনতে আলোচনা চলছে নির্বাচনী মিত্র দল জাতীয় পার্টি ও ‘আদর্শিক’ জোট ১৪ দলের শরিক দলগুলোর সঙ্গে। আজ সোমবার আসন বণ্টন চূড়ান্ত হতে পারে বলে আওয়ামী লীগের একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে।

জানা যায়, মিত্র ও জোটের শরিক দলগুলোকে সর্বোচ্চ ৭০টি আসন দেওয়া হতে পারে। মিত্রদের সঙ্গে আসন সমঝোতা চূড়ান্ত হওয়ার পর যেকোনো সময় ঘোষণা করা হবে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালিকা।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গতকাল রবিবার সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন জোটের প্রার্থী তালিকা একসঙ্গে প্রকাশের সিদ্ধান্ত হয়েছে। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রায় ঠিক করে ফেলা হয়েছে, এখন জোটের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা শুরু হয়েছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘তারা (জাপা ও ১৪ দলের শরিক) যাদের মনোনয়ন দিতে চায় আমরা সেই তালিকা চেয়েছি। আগামীকালের (সোমবার) মধ্যে সেটা পেয়ে যাব। তারপর আনুষ্ঠানিকভাবে বসতে পারি।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘জোটগতভাবে যে সমীকরণ দাঁড়াবে সেখান থেকে পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করা হবে। এটা করতে আরো চার-পাঁচ দিন সময় লাগবে।’ জোটের শরিক দলগুলোকে কত আসন দেওয়া হচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘৬৫-৭০টির মতো হবে। তবে এর মধ্যেও আলাপ-আলোচনা ও জরিপ অনুযায়ী জয়ী হওয়ার মতো প্রার্থী বেশি হলে তাদের আরো বেশি আসন দেওয়া হবে। আর কম থাকলে তাও বিবেচনা করা হবে।’

তবে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলী ও সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য কাজী জাফর উল্যাহ গতকাল কালের কণ্ঠকে বলেন, আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য প্রার্থী চূড়ান্ত হয়ে গেছে। আজ সোমবার ঘোষণা করা হবে বলে তিনি জানান।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলী ও সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের আরেক সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘দলীয় সিলেকশন সম্পন্ন হয়েছে। এগুলো চূড়ান্ত মনোনয়নের লক্ষ্যে পুনরায় দেখা হচ্ছে।’ রমেশ চন্দ্র সেন জানান, আওয়ামী লীগের ৩০০ আসনেই প্রার্থী চূড়ান্ত করা হচ্ছে। আজ ‘মহাজোট’ ও ১৪ দলের শরিকদের আসনগুলো চূড়ান্ত হবে। যেসব আসন শরিকরা পাবে, সেসব আসন থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের প্রত্যাহার করা হবে।

আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক সূত্রে জানা যায়, দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার বেসরকারি খাতবিষয়ক উপদেষ্টা ব্যবসায়ী সালমান এফ রহমানকে ঢাকা-১ (দোহার-নবাবগঞ্জ) আসনে মনোনয়ন দেওয়া হচ্ছে। বিষয়টি এরই মধ্যে তাঁকে জানিয়েও দেওয়া হয়েছে দলের শীর্ষপর্যায় থেকে। ওই আসনে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত নির্বাচনে দলের মনোনয়ন পেয়েছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী আবদুল মান্নান খান। তবে ভোটযুদ্ধে জয়লাভ করেছিলেন জাতীয় পার্টির অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম।

সূত্র মতে, কুমিল্লা-৭ (চান্দিনা) আসনে মনোনয়ন দেওয়া হচ্ছে বর্তমান সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা অধ্যাপক আলী আশরাফকে। এ আসনের জন্য মনোনয়ন লড়াইয়ে অবতীর্ণ হন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত। আওয়ামী লীগের শীর্ষপর্যায় থেকে বিষয়টি দুজনকেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্রে জানা যায়, মাদারীপুর-৩ আসনে মনোনয়ন দেওয়া হচ্ছে দলের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপকে। বর্তমানে এ আসনের সংসদ সদস্য হলেন দলের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। মনোনয়নের বিষয়টি দুজনকেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

নতুন মুখের তালিকায় যাঁরা আছেন তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন কিশোরগঞ্জ-২ আসনে সাবেক আইজিপি নূর মোহাম্মদ, মাদারীপুর-৩ আসনে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ ও মাগুরা-১ আসনে সাইফুজ্জামান শিখর।

এ ছাড়া প্রার্থী তালিকায় আছেন পঞ্চগড়-২ আসনে নুরুল ইসলাম সুজন, ঠাকুরগাঁও-১ আসনে রমেশ চন্দ্র সেন, ঠাকুরগাঁও-২ আসনে দবিরুল ইসলাম, দিনাজপুর-১ মনোরঞ্জন শীল গোপাল, দিনাজপুর-২ খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, দিনাজপুর-৩ ইকবালুর রহিম, দিনাজপুর-৪ এ এইচ মাহমুদ আলী, দিনাজপুর-৫ মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার, নীলফামারী-২ আসাদুজ্জামান নূর, লালমনিরহাট-১ মোতাহার হোসেন, রংপুর-৫ এ এইচ এন আশিকুর রহমান, গাইবান্ধা-২ মাহবুব আরা গিনি, জয়পুরহাট-২ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, নওগাঁ-২ শহীদুজ্জামান সরকার, নওগাঁ-৬ ইস্রাফিল আলম, রাজশাহী-৩ আয়েন উদ্দিন, রাজশাহী-৬ শাহরিয়ার আলম, সিরাজগঞ্জ-১ মোহাম্মদ নাসিম, সিরাজগঞ্জ-২ হাবিবে মিল্লাত, সিরাজগঞ্জ-৬ হাসিবুর রহমান স্বপন, পাবনা-৪ শামসুর রহমান শরীফ ডিলু, বাগেরহাট-১ শেখ হেলাল উদ্দিন, খুলনা-৩ মন্নুজান সুফিয়ান, ভোলা-৪ আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব, মৌলভীবাজার-৩ সায়েরা মহসিন, সুনামগঞ্জ-২ জয়া সেনগুপ্তা, কুমিল্লা-৭ অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ, কুমিল্লা-১০ আ হ ম মুস্তফা কামাল, মুন্সীগঞ্জ-২ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, গাজীপুর-৪ সিমিন হোসেন রিমি, গাজীপুর-৫ মেহের আফরোজ চুমকি, ঢাকা-২ কামরুল ইসলাম, ঢাকা-৭ হাজি মো. সেলিম, ঢাকা-১০ ফজলে নূর তাপস, ঢাকা-১১ এ কে এম রহমতুল্লাহ, ঢাকা-১৪ আসলামুল হক আসলাম, নরসিংদী-৩ সিরাজুল ইসলাম মোল্লা, নরসিংদী-৫ রাজি উদ্দিন আহমেদ রাজু, নারায়াণগঞ্জ-৪ শামীম ওসমান, মাদারীপুর-১ নূর আলম চৌধুরী লিটন, মেহেরপুর-১ ফরহাদ হোসেন দোদুল, ময়মনসিংহ-১০ ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল, নেত্রকোনা-২ আরিফ খান জয়, সিলেট-১ আবুল মাল আবদুল মুহিত, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ ক্যাপ্টেন (অব.) এ বি তাজুল ইসলাম, চাঁদুপর-৩ ডা. দীপু মনি, চট্টগ্রাম-৬ এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী, চট্টগ্রাম-৭ ড. হাছান মাহমুদ, কক্সবাজার-৩ সাইমুম সরওয়ার কমল, খাগড়াছড়ি কুজেন্দ্র লাল চাকমা ও বান্দরবান বীর বাহাদুর উশৈ সিং।

আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের একজন সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে কালের কণ্ঠকে জানান, বর্তমান সংসদ সদস্যদের মধ্যে বেশির ভাগই এবারও মনোনয়ন পাচ্ছেন। তবে তরুণ ও নারী প্রার্থী উল্লেখযোগ্য হারে বাড়ছে।

আওয়ামী লীগের একাধিক প্রভাবশালী নেতা গতকাল জানান, কমপক্ষে ছয়টি সংস্থার রিপোর্ট শেষবারের মতো পর্যালোচনা করেছেন দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর বাইরে ব্যক্তিগত উদ্যোগেও জরিপ চালিয়েছেন তিনি। সব পর্যবেক্ষণ করে ৩০০টি আসনে দলীয় মনোনয়ন তালিকা তৈরি করেছেন আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যরা।

৩০০ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশা করে আবেদন করেন চার হাজার ২৩ জন নেতা। গড়ে প্রতিটি আসনে ১২ জন মনোনয়ন প্রত্যাশা করেছেন। গত বুধবার গণভবনে তাঁদের অনানুষ্ঠানিক সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়। সেখানে আসনপ্রতি এত মনোনয়নপ্রত্যাশী দেখে বিস্ময় প্রকাশ করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি।

এদিকে জাতীয় পার্টি গত শনিবার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে চিঠি দিয়ে আসন বণ্টন ফয়সালা করার অনুরোধ জানায়। এরপর ওই রাতেই দলের সিনিয়র নেতাদের নিয়ে বসেন শেখ হাসিনা। সংশ্লিষ্ট নেতারা গতকাল জাপার চাওয়া আসনগুলো চিহ্নিত করে জরিপ রিপোর্ট মিলিয়ে দেখার কাজ শুরু করেছেন বলে জানা গেছে।
-কালেরকণ্ঠ

যশোরে অজ্ঞাত নারীর লাশ উদ্ধার

যশোরের চৌগাছার একটি মাঠ থেকে অজ্ঞাতপরিচয় এক নারীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রবিবার বিকালে উপজেলার বাদেখাঁনপুর গ্রামের পুকুরমাঠ এলাকা থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, রবিবার বিকালে চৌগাছা-মহেশপুর সড়কের জিসিবি আদর্শ কলেজের পূর্ব পাশের মাঠে এক নারীর মৃত দেহ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা। তার বয়স আনুমানিক ৩৫ বছর।

স্থানীয়রা থানা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য যশোর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। তাকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ ও মাথায় আঘাত করে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে পুলিশ ধারণা করছে। তবে কি কারণে ওই নারী হত্যার শিকার হলেন তা কেউ বলতে পারেনি।

থানার সেকেন্ড অফিসার এস আই আকিকুল ইসলাম জানান, রবিবার বিকালে থানা পুলিশ এক মহিলার লাশ উদ্ধার করেছে। তবে নিহতের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে, ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ ও আঘাত করে তাকে হত্যা করা হয়েছে। বিষয়টি আমরা গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করছি।

যে তিন সময় নামাজ পড়া সম্পূর্ণরূপে হারাম!

দিন রাতে সব মিলিয়ে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়া ফরজ। এছাড়াও হাদীসে আরো কিছু ফজিলতপূর্ণ নফল নামাজের কথা উল্লেখ আছে। দিন বা রাতের বিভিন্ন সময়ে তা আদায় করা হয়ে থাকে। এর বাইরে একজন মুসলিম যতো খুশি ব্যক্তিগত নফল নামাজ আদায় করতে পারে। যার কোনো সীমারেখা নির্ধারিত নেই। কিন্তু প্রতি ২৪ ঘণ্টায় কিছু সময় এমন আছে যখন নামাজ পড়া সম্পূর্ণরূপে হারাম। আর এমন কিছু সময় এমন আছে যাতে নির্ধারিত কিছু নামাজ পড়া মাকরুহ। নিচে এ সময়গুলো নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা হলো।

হাদীস সূত্রে জানা যায়, তিন সময়ে নামাজ পড়া নিষেধ। সাহাবী উকবা বিন আমের জুহানী (রা.) বলেন, ‘তিনটি সময়ে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাদেরকে নামাজ পড়তে এবং মৃতের দাফন করতে নিষেধ করতেন। সূর্য উদয়ের সময়; যতোক্ষণ না তা পুরোপুরি উঁচু হয়ে যায়। সূর্য মধ্যাকাশে অবস্থানের সময় থেকে নিয়ে তা পশ্চিমাকাশে ঢলে পড়া পর্যন্ত। যখন সূর্য অস্ত যায়’। [সুবুলুস সালাম : ১/১১১, সহীহ মুসলিম : ১/৫৬৮]

উক্ত হাদীসের ভাষ্যানুযায়ী নামাজের নিষিদ্ধ সময় তিনটি। যথা-১. সূর্য যখন উদিত হতে থাকে এবং যতোক্ষণ না তার হলুদ রঙ ভালোভাবে চলে যায় ও আলো ভালোভাবে ছড়িয়ে পড়ে। এরজন্য আনুমানিক ১৫-২০ মিনিট সময় প্রয়োজন হয়। ২. ঠিক দ্বিপ্রহরের সময়; যতোক্ষণ না তা পশ্চিমাকাশে ঢলে পড়ে। ৩. সূর্য হলুদবর্ণ ধারণ করার পর থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত।

উল্লিখিত তিন সময়ে সব ধরনের নামাজ পড়া নিষেধ। চাই তা ফরজ হোক কিংবা নফল। ওয়াজিব হোক বা সুন্নতে মুয়াক্কাদা। এ সময়ে শুকরিয়ার সিজদা এবং অন্য সময়ে পাঠকৃত তিলাওয়াতের সিজদাও নিষিদ্ধ। তবে এই সময়ে জানাজা উপস্থিত হলে বিলম্ব না করে তা পড়ে নেয়া যাবে। ঠিক তদ্রæপ কেউ যদি ওই দিনের আসরের নামাজ সঠিক সময়ে পড়তে না পারে তাহলে সূর্যাস্তের আগে হলেও তা পড়ে নিতে হবে। কাযা করা যাবে না। কারণ রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি সূর্যাস্তের পূর্বে আসরের এক রাকাত পড়তে পারলো সে পুরো আসরের নামাজই পেলো’।

অন্য হাদীসে আরো দুই সময়ে নামাজ পড়ার নিষেধাজ্ঞা এসেছে। সাহাবী আবু সাঈদ খুদরী (রা.) বলেন, ‘আমি রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছি, ফজরের নামাজের পর থেকে সূর্যোদয় পর্যন্ত কোনো নামাজ নেই। আসরের নামাজের পর থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত কোনো নামাজ নেই। [সহীহ মুসলিম : ৮২৭]

এই দুই সময়ে কোনো ধরনের নফল নামাজ পড়া জায়েয নেই। তবে আসরের নামাজের পর সূর্য লালবর্ণ ধারণের আগ পর্যন্ত কাযা নামাজ পড়া যাবে। এরপর আর কাযাও পড়া যাবে না। তবে এ দুই সময়ে জানাজার নামাজ পড়া যাবে।

“যা খেলে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমবে…”

ডায়াবেটিস একবার হয়ে গেলে তা হয়ে যায় সারা জীবনের সঙ্গী। শিশু থেকে বৃদ্ধ, যে–কেউ এ রোগে আক্রান্ত হতে পারে। এই রোগ সারানোর ওষুধ এখনো আবিষ্কৃত হয়নি। তবে কিছু নিয়মকানুন মেনে চললেই একে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। এ জন্য খাবারদাবারে রাশ টানা অন্যতম উপায়।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি স্টার জানিয়েছে, বিশ্বজুড়ে টাইপ-২ ডায়াবেটিসে ভোগা রোগীর সংখ্যাই সবচেয়ে বেশি। আর ডায়াবেটিসে ভোগার কারণে হতে পারে হৃদ্‌রোগ ও স্ট্রোকের মতো গুরুতর রোগ। আমেরিকান ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশন বলছে, শতকরা ৬০ ভাগ ক্ষেত্রে জীবনাচরণে পরিবর্তন এনেই ডায়াবেটিস প্রতিরোধ বা বিলম্বিত করা যায়।

যুক্তরাজ্যের ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস) খাবারের বিষয়ে বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছে। সংস্থাটি বলছে, ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে মিষ্টি, লবণ ও চর্বিজাতীয় খাবার কম করে খাওয়ার অভ্যাস গড়তে হবে। বেছে নিতে হবে চিনিমুক্ত খাবার। এনএইচএসের পরামর্শগুলো হলো:

১. খেতে হবে তাজা সবজি ও ফল। তাই বলে ফলের জুস খেতে যাবেন না যেন! তার চেয়ে বরং ফল চিবিয়ে খান। চিবিয়ে খেলে ফলে থাকা কার্বোহাইড্রেট রক্তের সঙ্গে মেশে সহজে। এ ছাড়া চিবিয়ে খেলে দাঁত ও মুখের পেশিও কাজ করার সুযোগ পায়। এমন প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে ফলের যে রস শরীর পায়, সেটি সহজে পরিপাক হয়।

২. কম চর্বিযুক্ত দই খাওয়া যেতে পারে। বিশেষ করে টকদই। শিশুদের জন্য দই খুবই উপকারী। এই দুগ্ধজাত বস্তুতে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম থাকে। হাড় ও দাঁতের জন্য ক্যালসিয়াম খুবই উপকারী।

৩. বেশি ভাজাপোড়া বা বেশি চর্বিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলতে হবে। লবণ বুঝে খেতে হবে। যত কম খাওয়া যায়, ততই মঙ্গল।

৪. চিনিযুক্ত পানীয় থেকে দূরে থাকতে হবে। জুস ও স্মুদিতে প্রচুর চিনি ও ক্যালরি থাকে। তাই কতটুকু খাচ্ছেন, তার হিসাব রাখতে হবে। মাত্রাতিরিক্ত হলেই বিপদ।

৫. একটি বা দুটি সেদ্ধ ডিম খাওয়া যেতেই পারে। একটি বড় ডিমে থাকে প্রায় ৬ গ্রাম আমিষ। ডায়েটে ভিটামিন ডি যোগ করার জন্য ডিম বেছে নেওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ।

৬. খাবার খেতে হবে ক্যালরি মেপে। কতটুকু খাবারে কতটুকু ক্যালরি ঢুকছে শরীরে, তা মাথায় রাখতে হবে। বুঝেশুনে খেলেই আর বিপদের সম্ভাবনা নেই।

একবার চার্জ দিলেই এই ফোন চলবে টানা ২১ দিন!

মোবাইল ফোনের বাজার ধরতে ফের কোমর বেধে নেমেছে এককালের বাজার সেরা মোবাইল ফোন কোম্পানি ‘নকিয়া’। স্মার্টফোনের বাজার ধরতে যেমন পাঁচটি রিয়ার ক্যামেরার নকিয়া-৯ লঞ্চ করেছে প্রতিষ্ঠানটি, তেমনই বেসিক ফোনের বাজারে এক চুলও জায়গা ছাড়তে নারাজ তারা। তাই এবার শক্তিশালী ব্যাটারি ব্যাকআপসহ বাজারে আসছে ‘নকিয়া ১০৬’ মোবাইল ফোন।

কোম্পানির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, টানা ২১ দিনের স্ট্যান্ডবাই সাপোর্ট নিয়ে বাজারে আসছে ডুয়াল সিমের নকিয়া ১০৬ মোবাইল। এক্ষেত্রে এই ফোনটিকে চার্জ দিতে হবে মাত্র একবার। ফোনটিতে ৮০০ মেগা হার্টজের শক্তিশালী ব্যাটারি থাকায় কথা বলার জন্য সময় পাওয়া যাবে ১৫ ঘণ্টা।

এইচএমডি গ্লোবাল কোম্পানির তৈরি নতুন এই ফোনে প্রি-লোডেড থাকবে একাধিক আকর্ষণীয় গেমস। নকিয়া ১০৬ ফোনটিতে দুই হাজার কনট্যাক্ট এবং ৫০০ টেক্সট মেসেজ স্টোরেজে রাখা যাবে।

নকিয়া ১০৬ এ রয়েছে একটি এক দশমিক আট ইঞ্চি ‘কিউকিউভিডিএ টিএসটি’ ডিসপ্লে আর আট জিবি ইন্টার্নাল স্টোরেজ। এই স্টোরেজে আপনার পছন্দ মতো কয়েকশো এমপি থ্রি বা মিউজিক ফাইল সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন মাইক্রো ইউএসবি পোর্টের সাহায্যে।

এরই সঙ্গে এই ফোনে রয়েছে এফএম রেডিওর সুবিধাও। এরই সঙ্গে নকিয়া ১০৬ ফোনে রয়েছে এলইডি ফ্ল্যাশ লাইট।

ডার্ক গ্রে রঙে পাওয়া যাবে এই ফোনটি। রাশিয়ার বাজারে নকিয়া ১০৬ ফোনের দাম এক হাজার ৫৯০ রুবল। যা বাংলাদেশি টাকায় দুই হাজার টাকা মাত্র। তবে আন্তর্জাতিক বাজারে কবে নাগাদ ফিচার ফোনটির বিক্রি শুরু হবে, সে বিষয়ে কোনো তথ্য জানা যায়নি।

‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’ দেখে যা বললেন শাকিব

দেশের সফল কাণ্ডারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিজীবন নিয়ে তৈরি হয়েছে ডকু-ড্রামা ‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’। শুক্রবার (১৬ নভেম্বর) ঢাকা ও চট্টগ্রামের চারটি সিনেমা হলে মুক্তি পেয়েছে এটি।

মুক্তির পরপরই ‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’ দেখার জন্য দর্শকরা ভিড় করছেন সিনেমা হলে। আর দেখার পর একরাশ মুগ্ধতা প্রকাশ করছেন সবাই। বাদ যাননি দুই বাংলার অন্যতম জনপ্রিয় নায়ক শাকিব খানও। ডকু-ড্রামাটি দেখার পর এর ভূয়সী প্রশংসা করেছেন এই সুপারস্টার।

শাকিব খান বলেছেন, এক কথায় অসাধারণ। যিনি বানিয়েছেন চমৎকার করেই বানিয়েছেন। এমন ছবি আমাদের অনেক হওয়া উচিত এবং আমাদের দেখা উচিত। আমরা এই প্রজন্মের যারা মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি তাদের এটি দেখে অনেক কিছুই শেখার আছে। অনেক অতীত ইতিহাস মানুষের চোখের সামনে চলে এসেছে এবং অনেক সুন্দরভাবে উপস্থাপন করেছে।

‘হাসিনা: এ ডটারস টেল’ ডকু-ড্রামায় উঠে এসেছে শেখ হাসিনার ব্যক্তিজীবনের গল্প। কীভাবে তিনি একজন আলসেমনা কিশোরী থেকে আজকের অবস্থানে এসেছেন, সেই চিত্রই তুলে ধরা হয়েছে। এতে শেখ হাসিনা ছাড়াও বয়ান দিয়েছেন তার বোন শেখ রেহানা। ডকুড্রামাটি নির্মাণ করেছেন পিপলু খান।

ঢাকা ও চট্টগ্রামের চারটি সিনেমা হলে প্রদর্শিত হচ্ছে ‘হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল’। ঢাকার স্টার সিনপ্লেক্স, যমুনা ব্লকবাস্টার ও মধুমিতা সিনেমা হল এবং চট্টগ্রামের সিলভার স্ক্রিন-এ চলছে এই ডকু-ড্রামা।

ইরানকে সাথে নিয়ে মধ্যপ্রাচ্য সঙ্কট মোকাবেলা করবে ইরাক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা আরও বাড়ানোর ব্যাপারে অত্যন্ত আন্তরিক ইরাক। রোববার ইরান সফর শেষে এক টুইটার বার্তায় এ কথা জানিয়েছেন ইরাকের প্রেসিডেন্ট বারহাম সালিহ।

বারহাম সালিহ আরও বলেন, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে ইরান এবং ইরাকের সম্পর্ক ঐতিহাসিক। এই সম্পর্ক দুই দেশের মধ্যে দৃঢ় বন্ধন তৈরি করেছে। প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সুসম্পর্ককে কাজে লাগিয়ে ইরাক মধ্যপ্রাচ্যে চলমান সঙ্কটের অবসান ঘটানোর চেষ্টা করবে বলে তিনি জানান।

বারহাম সালিহ শনিবার ইরান সফর করেন। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ উজমা খামেনি এবং প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানির সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয় নিয়ে তিনি আলোচনা করেছেন।

তিনি রোববার ইরান থেকে সৌদি আরব গেছেন। ইরান আসার আগে বারহাম সালিহ সংযুক্ত আরব আমিরাত, কুয়েত ও জর্ডান সফর করেন।

এর আগে চলতি বছরের জুন মাসে ইরান ও ইরাকের মধ্যে একটি সীমান্ত সহযোগিতা চুক্তি সই হয়েছে। ইরানের রাজধানী তেহরানে এ চুক্তি সই হয়।

চুক্তিতে ইরানের পক্ষে সই করেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল কাসেম রেজায়ি এবং ইরাকের পক্ষে সই করেন মেজর জেনারেল হামিদ আবদুল্লাহ ইব্রাহিম আল-হোসেইনি।

ইরান ও ইরাকের মধ্যে এক হাজার ৯০৯ কিলোমিটারের অভিন্ন সীমান্ত রয়েছে। বৈঠকে ইরানের সর্বোচ্চ নেতা শত্রুদের মোকাবেলায় দৃঢ় অবস্থান গ্রহণের জন্য ইরাকি প্রেসিডেন্টের প্রতি আহ্বান জানান।

বিএনপির প্রার্থী তালিকা প্রকাশ ৮ ডিসেম্বর

আগামী ৮ ডিসেম্বর দলীয় প্রার্থীর চূড়ান্ত নামের তালিকা প্রকাশ করবে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)। দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের নির্বাচন কমিশনে নমিনেশন জমা দেয়ার নির্দেশনা দিয়েছেনও মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যরা।রোববার সকালে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার গুলশান দলীয় কার্যালয়ে দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার শেষে একাধিক সদস্য এই তথ্য নিশ্চিত করেন।

প্রসঙ্গত,একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল পুননিরর্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। সোমবার (১২ নভেম্বর) সন্ধ্যায় কমিশন সচিব হেলালুদ্দিন আহমদ স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপন প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ৮ নভেম্বরের ঘোষিত নির্বাচনের সময়সূচি আরপিও ১১-এর দফা ১ অনুসারে, তফসিল পুননির্ধারণ করা হলো।

পুননির্ধারিত তফসিল অনুযায়ী, প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমার শেষ তারিখ ২৮ নভেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাই ২ ডিসেম্বর, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৯ ডিসেম্বর এবং ভোট গ্রহণ ৩০ ডিসেম্বর নির্ধারণ করা হয়। নির্বাচনের তফসিল পুননিরর্ধারণ সূচি অনুয়ায় মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৯ ডিসেম্বর। তাই ৮ ডিসেম্বর ৩০০ আসনে বিএনপি দলীয় প্রার্থীর চূড়ান্ত নামের তালিকা প্রকাশ করা হবে। আর যারা মনোনয়ন পাবে না তারা যেন একদিনের মধ্যে প্রত্যাহার করে নেয় এমন নির্দেশনা দিয়েছেনও মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যরা।

রোববার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকারের সময় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন তারেক রহমান। প্রতি বছর বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া পার্লামেন্টারি বোর্ডে সভাপতিত্ব করলেও কারান্তরীণ হওয়ার এবারই সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী পার্লামেন্টারি বোর্ডে অনুপস্থিত। মনোনয়ন বোর্ডে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্যদের মধ্যে মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, জমিরউদ্দিন সরকার, মওদুদ আহমদ,লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান, রফিকুল ইসলাম মিয়া, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে এ প্রক্রিয়া শুরু করে বিএনপি। শুরুতে সকাল ৯টায় প্রথম দিনে রংপুর বিভাগের ৩৩ আসনে ১৫৮ জনের এবং বিকালে রাজশাহী বিভাগের ৪১ আসনে ৩৬৮ জনের সাক্ষাৎকার নেয়া হয়।

মনোনয়ন প্রত্যাশীরা জানান, প্রতি আসনে সবাইকে একসঙ্গে মনোনয়ন বোর্ডের সামনে ডাকা হচ্ছে।স্থায়ী কমিটির সদস্যরা আলাপ শুরু করছেন। ভিডিও কনফারেন্সে তারেক রহমান প্রত্যেকের কাছে জানতে চাচ্ছেন, কেন দলের প্রার্থী হতে চাইছেন।দলে তাঁর ভূমিকা কী, দলের জন্য তিনি কী করেছেন। তৃণমূল ও এলাকার মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ কেমন ইত্যাদি। মনোনয়ন বোর্ডের অন্য সদস্যদের সঙ্গে কথা বলার সময়ও পুরোটা সময় শুনছেন তারেক।

দিনাজপুর-১ কাহারোল আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী মামুনুর রশীদ চৌধুরী বলেন,সাক্ষাৎকারে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কথা বলেন। এর পর দলের সিনিয়র নেতারা প্রত্যেককে একে একে প্রশ্ন করেন। জানতে চান কেন আপনাকে নমিনেশন দেয়া হবে? নমিনেশন পেলে কি করবেন? জয়ী হতে পারবেন কি না? দল থেকে যাকে নমিনেশন দেয়া হবে তার পক্ষে কাজ করবেন কি না?

পঞ্চগড় ২ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী ফরহাদ হোসেন বলেন, তারেক রহমান ১/১১ পরবর্তী সময়ে তাঁদের ভূমিকার বিষয়ে জানতে চেয়েছেন।আপাতত সবাইকেই মনোনয়নপত্র দেওয়া হয়েছে। চূড়ান্ত করে কিছুদিনের মধ্যেই জানিয়ে দেওয়া হবে।

সাক্ষাতকারের সূচী অনুযায়ী, বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের ১৯ নভেম্বর ( সোমবার) খুলনা বিভাগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার হবে সকাল ৯টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত এবং বিকাল ৩টা থেকে শুরু হবে বরিশাল বিভাগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার।২০ নভেম্বর মঙ্গলবার চট্টগ্রাম বিভাগের সাক্ষাৎকার হবে সকাল ৯টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত এবং বিকাল ৩টা থেকে কুমিল্লা ও সিলেট বিভাগের সাক্ষাৎকার শুরু হবে। ২১ নভেম্বর বুধবার সকাল ৯টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত হবে ময়মনসিংহ ও ফরিদপুর বিভাগের এবং বিকাল ৩টা থেকে ঢাকা বিভাগের সাক্ষাৎকার শুরু হবে।

গত সোমবার বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জন্য মনোনয়ন ফরম কেনার মাধ্যমে ফরম বিক্রি শুরু হয়।শেষ দিন পর্যন্ত মোট ৪ হাজার ৫৮০টি মনোনয়নপত্র বিক্রি করেছে বিএনপি।দলটি প্রতিষ্ঠার পর মনোনয়ন ফরম বিক্রিতে বিক্রিতে এটাই সর্বোচ্চ রেকর্ড।

এদিকে,আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন প্রাথীদের সাক্ষাতকার ঘিরে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশানের কার্যালয় ঘিরে দিনভর ছিল উৎসবের আমেজ। এছাড়া সাক্ষাতকারকে কেন্দ্র করে মোড়ে মোড়ে বাসানো হয়েছে পুলিশের চেকপোস্ট। মনোনয়ন প্রত্যাশী, মহানগর, জেলা,উপজেলা দলের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতিকে তল্লাশির মাধ্যমে ডুকতে দেওয়া হলেও সাধারণ মানুষকে অন্য রাস্তায় চলাচল করতে বলা হয়েছে। যে কয়দিন বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীর সাক্ষাতকার অব্যাহত থাকবে বলে জানা গেছে ।