শনিবার, অক্টোবর ২০, ২০১৮

৩০০ আসনেই প্রার্থী দেব: এরশাদ

আগামী সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনেই জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রার্থী দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন দলটির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।

শনিবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাপা জোটের মহাসমাবেশে তিনি এ ঘোষণা দেন।

এরশাদ বলেন, ‘আমরা ৩০০ আসনে নির্বাচন করতে চাই। ৩০০ আসনেই আমরা প্রার্থী দেব। এ মাসের মধ্যেই পার্লামেন্টারি বোর্ড গঠন করা হবে। তৃণমূলের সমর্থনে প্রার্থীদের মনোনয়ন দেওয়া হবে।’

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করে এরশাদ বলেন, আগামী নির্বাচন নিয়ে সংশয় আছে। নির্বাচন হবে কি হবে না জানি না।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দাবির বিষয়ে তিনি বলেন, একটি দল যে সাত দফা দিয়েছে তা সংবিধান অনুযায়ী মানা সম্ভব না।

এরশাদ বলেন, ‘আমরা সবসময় নির্বাচন করেছি। আজও আমরা নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত। তবে আমরা সুষ্ঠু নির্বাচন চাই, অবাধ নির্বাচন চাই। আমরা যারা সংসদে আছি সকলের সমন্বয়ে নির্বাচনকালীর সরকার গঠন করতে হবে। নির্বাচনের জন্য অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে।’

জোটের বিভিন্ন দাবি পেশ করে এরশাদ বলেন, ‘আমরা নির্বাচন পদ্ধতি পরিবর্তন করতে চাই। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা চাই। শিক্ষা পদ্ধতির সংস্কার চাই। স্বাস্থ্যসেবার সম্প্রসারণ চাই। শান্তির রাজনীতি চাই। সড়কে নিরাপত্তা চাই।’

জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় গেলে জনগণের উন্নয়নের জন্য যা যা করা দরকার তার সবই করবে বলেও এসময় প্রতিশ্রুতি দেন জাপা চেয়ার‌ম্যান।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার পর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় পার্টি (জাপা) নেতৃত্বাধীন জোটের সমাবেশ শুরু হয়। সকাল সাড়ে ১১টার দিকে সমাবেশস্থলে পৌঁছান জাপা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, দলটির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ ও জিএম কাদের।

অন্যদের মধ্যে জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, জিয়া উদ্দিন বাবলু, মুজিবুল হক চুন্নু, খেলাফত মজলিশের নায়েবে আমীর জোবায়ের আহমদ আনসারী প্রমুখ সমাবেশমঞ্চে উপস্থিত রয়েছেন।

বেনাপোলে গুলিবিদ্ধ যুবকের লাশ উদ্ধার

যশোরের বেনাপোল পুটখালী সড়কের চারা বটতলা নামক স্থান থেকে শনিবার সকালে অজ্ঞাত (৪০) যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার ডান চোখে ও বাম কানের নিচে গুলির চিহ্ন রয়েছে।

বেনাপোল পোর্ট থানা অফিসার ইনচার্জ আবু সালেহ মাসুদ করিম জানান, খবর পেয়ে ওই স্থান থেকে গুলিবিদ্ধ যুবকের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়।

তিনি জানান, লাশের ময়নাতদন্তের জন্য যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।
তবে হত্যার কারণ তিনি জানাতে পারেননি।

জাতীয় পার্টির মহাসমাবেশ আজ

জাতীয় পার্টি (জাপা) ও সম্মিলিত জোটের মহাসমাবেশ আজ। রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সকাল ১০টায় শুরু হবে এ সমাবেশ। এতে সভাপতিত্ব করবেন পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।

এছাড়া বক্তব্য রাখবেন- জাপার সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ, কো-চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের, মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারসহ জাপা এবং জোটের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দ।

সমাবেশকে ঘিরে সবরকম প্রস্তুতি শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য মেজর (অব.) খালেদ আখতার। সমাবেশে বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মীর উপস্থিতি নিশ্চিত করতে সবরকম উদ্যোগ নিয়েছে পার্টি ও জোটের নেতাকর্মীরা।

আজকের সমাবেশে বড় ধরনের শোডাউন করার মধ্য দিয়ে জাতীয় পার্টির নেতারা নিজেদের শক্তিমত্তার পরিচয় দিতে চায়। এ ছাড়াও জাপা’র নেতাকর্মীরা আগামী নির্বাচনে নিজেদের অবস্থান সম্পর্কে সমাবেশ থেকে পার্টির চেয়ারম্যানের কাছ থেকে পরিষ্কার একটি ঘোষণা চায়।

তারা মনে করেন, এ সমাবেশে দেশের মানুষ এরশাদের নির্বাচনী সিদ্ধান্ত সম্পর্কে জানতে পারবেন। এমনই দিক-নির্দেশনা দেবেন এরশাদ।
গতকাল বেলা ১২টায় সমাবেশের প্রস্তুতি দেখতে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় পার্টি ও জোটের সিনিয়র নেতাদের নিয়ে মঞ্চ পরিদর্শন করেন জাপা’র মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার। এ সময় ঢাকা ও এর আশেপাশে থেকে আসা বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের জাপা মহাসচিব বলেন, আগামী ১৫ থেকে ২০ দিন বাংলাদেশের রাজনীতির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ সময় অনেক নতুন নতুন ঘটনা দেখতে পাবেন দেশের মানুষ।

তিনি জানান, আমাদের সম্মিলিত জোটের পরিধিও আরো বাড়বে। বাংলাদেশে নির্বাচন আসলে জোটের তৎপরতা সবসময়ই বাড়ে। অতীতেও এমন হয়েছে। আমাদের সঙ্গে আসার জন্য অনেক দল আলোচনা করছে। আমরা আশা করছি নির্বাচনের আগে আমাদের অনেককে নিয়ে এক সঙ্গে চলতে হবে।

আমরা কার সঙ্গে যাবো, কে আমার সঙ্গে যাবে- চূড়ান্ত বিবেচনায় আরো কিছু চমক থাকবে, যা এখন বলা উচিত হবে না বলেও জানান রুহুল আমিন হাওলাদার। এ কারণে কিছু ঘটনা আমরা এখন বলতে পারছি না। যে জোট গঠন করলে আগামী দিনে আমরা সরকার গঠন করতে পারবো সেই পরিবেশ সৃষ্টি করতে যাচ্ছি।

ইসলামিক দলগুলো কিছু দাবি নিয়ে আমাদের সঙ্গে কথা বলছেন, সেগুলো পার্টির চেয়ারম্যান দেখবে। জাতীয় পার্টি যে সম্মিলিত জোট গঠন করেছে সেগুলো আপনাদের ছেড়ে যাবে কি না সাংবদিকরা প্রশ্ন করলে তিনি জানান, যারা দুর্বল তাদেরকে ছেড়ে চলে যায়। আমরা দুর্বল নই যে জোটের দলগুলো আমাদের ছেড়ে চলে যাবে। তিনি বলেন, শনিবারের মহাসমাবেশে মানুষের ঢল নামবে। সারাদেশ থেকে মানুষ সমাবেশে যোগ দেবেন।

ভারতে ট্রেন দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬১

ভারতের পাঞ্জাব রাজ্যের অমৃতসরে ট্রেন দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬১ জনে দাঁড়িয়েছে। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় অমৃতসরে দশেরার অনুষ্ঠানে রাবণের কুশপুত্তলিকায় আগুন দেওয়ার সময় চলন্ত ট্রেনের নীচে পড়ে হতাহতের এ ঘটনা ঘটে। অমৃতসরের পুলিশ কমিশনার সুধাংশু শেখর বলেছেন, আরো ২০০ মানুষ আহত হয়েছে। সর্বশেষ খবরে জানা গেছে, শহরের বিভিন্ন হাসপাতালে ৬০ জনের মতো ভর্তি হয়েছে। হতাহতদের মধ্যে শিশুও রয়েছে। খবর বিবিসি ও এনডিটিভি’র

পাঞ্জাবের উত্তর রেলের জনসংযোগ কর্মকর্তা জানান, স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় দুর্ঘটনাটি ঘটে অমৃতসর এবং মানেওয়ালার মাঝখানে ২৭ নম্বর গেটের সামনে। স্থানীয় সাংবাদিক রভিন্দর সিং রবীন জানান, অমৃতসর শহরের জোরা ফটকের কাছে দশেরা উৎসবে রাবণের কুশপুত্তলিকা জ্বালানোর সময়েই দুর্ঘটনা ঘটে। রেললাইনের ধারে দাঁড়িয়ে যখন বহু মানুষ দশেরা উৎসব দেখছিলেন, সেই সময়েই ট্রেন সেখানে এসে পড়ে। রভিন্দর সিং জানান, কুশপুত্তলিকায় আগুন দেওয়ার সময় মাইকে ঘোষণা করা হয়, দর্শকরা যেন পিছন দিকে সরে যায়। সেই কথা মতো মানুষ পিছনের একটা রেললাইনের ওপরে চলে গিয়েছিল, তখনই সেখান দিয়ে একটি দ্রুতগামী ট্রেন চলে যায়। ট্রেনের ধাক্কায় বহু মানুষ এদিক ওদিক ছিটকে পড়ে। বিভিন্ন ছবিতে দেখা যায়, শরীরের নানা অংশ রেল লাইনের আশেপাশে পড়ে থাকতে দেখা যায়।

একজন পুলিশ কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, প্রচুর বাজি ফোটনোর শব্দ হচ্ছিলো, ফলে ট্রেন আসার শব্দ মানুষ শুনতে পায়নি। একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, রাবণের কুশপুত্তলিকায় আগুন দেওয়া হয়েছে, আর তার কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই একটি ট্রেন বেশ দ্রুতগতিতে চলে গেল। ওই ট্রেনটি পাঠানকোটের দিক থেকে আসছিল বলে জানা গেছে। স্থানীয় টিভি চ্যানেলগুলো প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে বলছে, প্রতি বছরই এই জায়গায় রাবণ পোড়ানো হয়। কিন্তু ওই সময়টায় ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকে, বা অতি ধীরে ট্রেন যায়। কিন্তু এবারে ট্রেনটি দ্রুতগতিতে চলে আসে।

বন্ধুদের সঙ্গে রাবণ দহন দেখতে জোড়া ফটকে গিয়েছিলেন রবি। তিনি বলেন, তার এক বন্ধুকে দুর্ঘটনার পর থেকে খুঁজে পাচ্ছেন না। এত জোরে ট্রেনটা চলে এল, মানুষ সরে যাওয়ার সময়ই পায়নি। হর্নও দেয়নি। প্রধানমন্ত্রী মোদী নিহতের প্রত্যেককে দুই লাখ রূপি করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। এর আগে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং নিহতদের পরিবারের জন্য ৫ লাখ রূপি করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ঘোষণা দেন। বিরোধী দল কংগ্রেস এই ঘটনায় শোক জানিয়েছে।
-ইত্তেফাক

পাইকগাছায় বাসের চাপায় মটরসাইকেল চালক নিহত

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ::
পাইকগাছায় বাসের চাপায় মটরসাইকেল চালক বাবু মোড়ল (২৬) নামের এক যুবক নিহত। এসময় ফারুক (৩০) নামের আরেক যাত্রী আহত হয়েছে। নিহত বাবু গদাইপুর গ্রামের হামিদ মোড়লের ছেলে। আহত ফারুক একই গ্রামের ইজাজুল গাজীর ছেলে।

গতকাল রাত আনুমানিক ৮টায় গদাইপুর বাজারের প্রধান সড়কে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানায়, ঘটনার দিন কয়রা থেকে যশোর ইটের ভাটায় যাওয়ার উদ্দেশ্যে রিজার্ভ করা চট্টগ্রাম-জ-২৪০ নং গাড়িটি দাড়িয়ে থাকা অবস্থায় মটরসাইকেল চালককে ধাক্কা দেয়। এ সময় চালক পড়ে গেলে একটি চাকা তার কোমরের উপর দিয়ে চলে গেলে সে গুরুতর আহত হয়।

হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসকরা উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। পাইকগাছা জিরো পয়েন্টে পৌছালে তার মৃত্যু হয়। এ সময় তাদের ব্যবহৃত মটরসাইকেলটি সম্পূর্ণ ভেঙ্গে যায়। বাসচালক পালিয়ে যায়। থানায় এ সংক্রান্ত একটি মামলা হয়েছে।

আশাশুনির মহিষাডাঙ্গায় ঐহিত্যবাহী নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

জি এম মুজিবুর রহমান ::
আশাশুনি উপজেলার কুল্যা ইউনিয়নের মহিষাডাঙ্গা নদীতে ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে মহিষাডাঙ্গা সার্বজনীন দুর্গাপূজা উদযাপন কমিটি এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে।

সাবেক জেলা শিক্ষা অফিসার কিশোরী মোহন বৈদ্যর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এস এম মোস্তফা কামাল। সম্মানিত অতিথি ছিলেন সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার মোঃ সাজ্জাদুর রহমান।

বিশেষ অতিথি ছিলেন এএসপি (কালিগঞ্জ সার্কেল) মোঃ ইয়াছিন আলি, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাফফারা তাসনীন, পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) বিপ্লব কুমার নাথ, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি নীলকণ্ঠ সোম, সেক্রেটারী রনজিৎ কুমার বৈদ্য, ইউপি চেয়ারম্যান দিপংকর কুমার সরকার দিপ, আশাশুনি প্রেসক্লাব সভাপতি জি এম মুজিবুর রহমান প্রমুখ।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন পূজা উদযাপন কমিটির সেক্রেটারী প্রভাষক হিরুলাল বিশ্বাস ও ম্ষ্টাার মঙ্গল কুমার। পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি ধর্মদাশ সরকারসহ কমিটির সদস্যবৃন্দ সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ছিলেন।

প্রতিযোগিতায় ১ম স্থান অধিকার করে সোনাবাঁধাল এর কালিমাতা নৌকা দল, ২য় স্থান অধিকার করে চরগ্রাম এর পঙ্খীরাজ নৌকা দল এবং ৩য় স্থান অধিকার করে সোনাবাঁধাল এর নবদূর্গা নৌকা দল। এছাড়া অংশ গ্রহনকারী ষষ্ট গ্রাম ও কুলপোতা এর রকেট নৌকা দলকে শান্তনা পুরস্কার প্রদান করা হয়।

তালায় ১৮০ পিস ইয়াবাসহ ইউপি সদস্য আটক

নিজস্ব প্রতিনিধি: সাতক্ষীরার তালা উপজেলার খলিলনগর ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ওয়ার্ড সদস্য বিশ্বজিত ম-লকে (৪২) ইয়াবাসহ আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন র‌্যাব-৬ এর সদস্যরা।

শুক্রবার সকালে নিজ বাড়ির সামনে থেকে ১৮০ পিস ইয়াবাসহ তাকে আটক করা হয়।

আটক বিশ্বজিত মণ্ডল খলিলনগর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড সদস্য ও খলিলনগর গ্রামের মৃত নিমাই ম-লের ছেলে।

খুলনা র‌্যাব-৬ এর কমান্ডার লে. কর্নেল জাহিদুল কবির জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব সদস্যরা খলিলনগর গ্রামে অভিযান চালায়। এসময় ইউপি সদস্য বিশ্বজিত ম-লের বাড়ির সামনে থেকে ১৮০ পিস ইয়াবাসহ তাকে আটক করা হয়। সে দীর্ঘদিন ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত ছিলো বলে র‌্যাবের ঐ কর্মকর্তা জানান।

জমে উঠেছে সাতক্ষীরার ঐতিহ্যবাহী গুড়পুকুর মেলা : ক্রেতা ও দর্শণার্থীদের উপচে পড়া ভীড়

নিজস্ব প্রতিনিধি: কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও সুষ্ঠ পরিবেশ থাকায় জমে উঠেছে সাতক্ষীরার ঐতিহ্যবাহী গুড়পুকুর মেলা।

শিশুর হাতে বেলুন বাঁশী, তরুণীর হাতে চুড়ি, খোঁপায় রঙ্গীন ফুল। বৃদ্ধের কাঁধে গাছের কলম, গৃহিনীর কাঁধে মাটির কলস, কাঠের বাসন। লোকজ সংস্কৃতির বিরল নিদর্শন ইতিহাস খ্যাত গুড়পুকুর মেলার সেই পুরনো দিন হয়তো আর নেই। তবু নতুন করে যেনো প্রাণ পেয়েছে এ মেলা।

গুড়পুকরের মেলা থেকে কেউ ফেরে না খালি হাতে এমন দিনটি হারিয়ে যেতে যেতে আবার কিন্তু সমহিমায় ফিরে এসেছে। বোমা সন্ত্রাস আর ধর্মান্ধ শক্তির দাপটে হারিয়ে যাওয়া বাঙ্গালি সংস্কৃতির অন্যতম নিদর্শন সাতক্ষীরার ঐতিহাসিক গুড়পুকুর মেলা আবারও জমে উঠেছে। ৩শ বছরের ঐতিহ্যবাহী গুড়পুকুরের মেলা আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে গত ২১ সেপ্টেম্বর।

প্রধান অতিথি হিসেবে ফিতা কেটে এ মেলা উদ্বোধন করেন সাতক্ষীরা সদর আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি। এ মেলা চলবে মাসব্যাপি। তবে ভাল পরিবেশ ও ক্রেতাদের চাহিদার উপর নির্ভর করে এ মেলার সময় আরো বাড়বে বলে জানিয়েছে মেলা কর্তৃপক্ষ। প্রতিদিন সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত মেলায় ভীড় একটু কম হলেও দুপুর গড়িয়ে বিকেল হবার সাথে সাথে মেলায় ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভীড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

সাতক্ষীরা শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্কে পৌর দীঘির পাড়ে নান্দনিক রূপ আর সৌন্দর্যের পেখম খুলে বসেছে গুড়পুকুরের মেলা। দর্শনার্থীদের চিত্তবিনোদনে মেলায় নাগরদোলা, নৌকা, ট্রেন ভ্রমণসহ রয়েছে নানা আয়োজন। শিশু-কিশোর, তরুণ -তরুণী, যুব-বৃদ্ধ সবাই ঐতিহ্যবাহী এ মেলা আনন্দ উপভোগ করছেন। স্বজনদের নিয়ে নাগরদোলায় উঠে উপভোগ করছেন অনাবিল আনন্দ। শিশুরা চড়ছে চরকায়। শিশু-কিশোর, যুব-বৃদ্ধ, সবাই ট্রেন ভ্রমণ করে দুধের স্বাদ ঘোলে মেটানোর প্রয়াস চালাচ্ছেন।

মেলায় দা, বটি, কোদাল, খাট-পালং, বাহারী, পোশাক ও জুতার পশরা সাজিয়ে বসেছেন দোকানীরা। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ব্যবসায়ীরা ঐতিহ্যবাহী গুড়পুকুরের মেলায় স্টল দিয়েছেন। স্টলগুলো সাজানো হয়েছে নান্দরিক রূপে। শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্ক ও পৌর দীঘির পাড়কে মুড়ে দেয়া হয়েছে সৌন্দর্যের মোড়কে ও নিরাপত্তার চাদরে। দোকানীরা বলছে তারা বহু-দুর থেকে এসে এ মেলায় স্টল দিয়েছেন। সকল খরচ মিটিয়ে ব্যবসায় লাভবান হতে কম পক্ষে এ মেলা দুই মাস চালানোর দাবী জানিয়েছেন।

২০০৩ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর ঐতিহ্যবাহী এ মেলা চলাকালে রকসি সিনেমা হলে এবং যাত্রা প্যান্ডেলে বোমা হামলা চালায় দূবৃত্তরা। বোমা হামলায় নিহত হয় ৩ জন। আহত হয় অর্ধ শতাধিক। ২০০৩ সালের পর থেকে গুড়পুকুরের মেলায় দর্শনার্থীদের ভাটা পড়ে। গত কয়েক বছর নতুন আঙ্গিকে মেলা উদযাপনের সিদ্ধান্ত নেয় সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন ও পৌর কর্তৃপক্ষ। কঠোর নিরাপত্তা ও চাঁদাবাজমুক্ত পরিবেশে সুষ্ঠুভাবে মেলার আয়োজন করে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন ও পৌর কর্তৃপক্ষ। মেলায় রয়েছে নিñিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

মেলায় আসছেন সব বয়সের নারী পুরুষ শিশু। তারা ঘুরে ঘুরে দেখছেন। কেনাকাটা করছেন। বিনোদনের সব সুযোগগুলিও ব্যবহার করছেন তারা। ভিড়ে ঠাসা এ মেলায় দোকানপাট বসেছে অসংখ্য। মেলার ব্যাপারে মেলার দোকানদের চেয়ারম্যান সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মানিক শিকদার বলেন, বেচাকেনা ভাল হচ্ছে। মেলায় কোনো জুয়া, সার্কাস, পুতুল নাচ নেই, সন্ত্রাস নেই, চাঁদাবাজি নেই। মেলায় নিশ্চিন্তে ও নির্বিঘেœ বেচাকেনা করছেন তারা। আর প্রাণ ভরে লোকজ মেলা উপভোগ করছেন উৎসব প্রিয় বাঙ্গালি।

তালায় পাট ও বিচুলির গাদায় আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা

নিজস্ব প্রতিনিধি: সাতক্ষীরা তালার আড়ংপাড়া গ্রামে এক ব্যক্তির বসত বাড়ির পাট ও বিচুলির গাদায় আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা।

বৃহস্পতিবার (১৮ অক্টোবর) রাত ১০ টার দিকে উপজেলার তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের আড়ংপাড়া গ্রামের চাঁদ আলী শেখের ছেলে শহিদুল শেখের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এতে প্রায় ২০ হাজার টাকা ক্ষতিসাধন হয়েছে। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এমন ঘটনা ঘটানো হয়েছে বলে ভুক্তভোগি পরিবারের দাবী।

ভুক্তভোগি শহিদুল ইসলামের স্ত্রী রেহেনা বেগম জানান, কেউ বাড়িতে না থাকার সুযোগে বৃহস্পতিবার রাত প্রায় ১০ টার দিকে একই এলাকার কাদের শেখ ও তার ছেলে জাহিদ শেখ গংরা পরিকল্পিতভাবে তাদের ঘরের ভিতরে রাখা পাট ও উঠানে বিচুলির গাদায় আগুন ধরিয়ে দেয়।

এসময় এলাকাবাসীরা টের পেয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে এবং এক পর্যায়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে। তিনি আরও জানান, এরপূর্বেও কাদের শেখ গংরা তারা স্বামীকে কয়েকবার মেরে ফেলতে চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। তিনি এব্যাপারে উর্দ্ধতন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। তবে কাদের শেখের তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

তালা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মেহেদী রাসেল বলেন, অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অবৈধ পথে ভারত থেকে ফেরার সময় বেনাপোল সীমান্তে আটক ৫

এম ওসমান: অবৈধ প‌থে ভারত থে‌কে ফেরার সময় বেনাপোল সীমান্ত থেকে ৫ বাংলাদেশি নারী-পুরুষকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরা। তবে এ সময় কোনো পাচারকারীকে আটক করতে পারেনি বিজিবি।

শুক্রবার (১৯ অক্টোবর) সকালে বেনাপোল দৌলতপুর সীমান্ত থেকে ২১ ব্যাটালিয়নের বিজিবি সদস্যরা তাদের আটক করেন।

আটককৃতরা হলেন- রাহেলা বেগম (২২), টিটু (২৮), রফিকুল ইসলাম (৪০), লিটন (২৩) ও শিশু সোহাগী (০৩)। এদের বাড়ি নড়াইল, মাদারীপুর ও বরিশাল জেলার বিভিন্ন এলাকায়।

বিজিবি জানায়, গোপন সংবা‌দে জানা যায় অবৈধ ভা‌বে ভারত থেকে বেশ কিছু নারী পুরুষ পারাপার করছে। এমন খবরে বিজিবি অভিযান চালিয়ে একটি বাঁশ বাগানের ভেতর থেকে শিশুসহ ৫ বাংলাদেশিকে আটক করে।

এর আগে বিজিবি’র উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায় পাচারকারীরা।

বিজিবি’র পুটখালী ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার সুবেদার মুন্সি লাবলু রহমান জানান, আটকদের বিরুদ্ধে অবৈধ অনুপ্রবেশ আইনে মামলা দিয়ে বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।