ঝিনাইদহে কলাবাগান ফুটসাল প্রিমিয়ার লীগে চলন্ত এসি চ্যাম্পিয়ন

273
KODAK Digital Still Camera

এলিস হক, ঝিনাইদহ হতে :
প্রথমে গোল করেও এগিয়ে নিতে পারলো না রংধনু স্পোর্টিং ক্লাব। অথচ সারা ম্যাচে রংধনুকে আগের সেই রংধনুর মতো দাপট দেখা গেলো না মাঠে। প্রতিপক্ষ দল বৃষ্টিবর্ষণ সিক্ত অথচ ভারি পিচ্ছিল মাঠে ছোট ছোট পাসের সাহায্যে দারুণ ভালো খেলেছে পাগলা কানাই হতে আসা চলন্ত স্পোর্টিং ক্লাব। প্রথমে গোল খেয়েও কোমরে হাত দিয়ে বসে থাকেনি বরং লড়াই করে মাঠে ফিরলো ঠিকই…তাও এক হালি গোলের উৎসব তো আর বাড়াবাড়ি নয়। মাঠে কিছু সংখ্যক দর্শক কলাবাগান ফুটসাল প্রিমিয়ার ফুটবল ফাইনাল খেলা দেখতে এসেছিলেন বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টায়। ঝিনাইদহ শহরের ওয়াজির আলী স্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত হলো এই দলের মধ্যে ফুটসাল প্রিমিয়ার লীগের ফাইনাল খেলা। রংধনু স্পোর্টিং ক্লাব প্রথমে গোল দিয়েও দলের পতন রোধ করলো না। ৪-১ গোলে হারলো শিরোপা প্রত্যাশী রংধনু এসি জুনিয়র দল।

পড়ন্ত বিকেলের আগে হালকা বৃষ্টিপাত হওয়ায় মাঠের অবস্থা আরো কদর্য হয়ে উঠে। ভীষণ পিচ্ছিল মাঠ। উভয় দলের খেলোয়াড়দের খেলতে দারুণ অসুবিধা হয়েছে। চলন্ত স্পোর্টিং ক্লাব প্রথম দফায় আক্রমন করে গোলমিসের মধ্যদিয়ে। এবং শেষ গোলমিসের মহড়ার চিহ্ন একে খেলা শেষ করে রংধনু স্পোর্টিং ক্লাব। চ্যাম্পিয়ন চলন্ত এসির পক্ষে গোল করেন রতন, জয়, রনি ও হৃদয় এবং রানার্স আপ রংধনু জুনিয়রের পক্ষে একমাত্র গোলটি করেন সবুজ।

তামিম, মানিকসহ অন্যান্য সতীর্থ খেলোয়াড়েরা চলন্ত স্পোর্টিংয়ের বিপক্ষে স্বাভাবিক খেলা দেখাতে ব্যর্থ হন। মাঝে মধ্যে উপরে উঠে বক্সের মধ্যে এসে খেই হারিয়ে ফেলেন। অবশ্য ৩টি গোল অমার্জনীয়ভাবে গোলের সহজ সুযোগ হাতছাড়া করেন তামিম, মানিক ও সোহেল। রংধনু দল আরো ২/৩টি গোল খাওয়ার বিপদ হতে বাঁচিয়েছেন গোলকিপার রাজু। খেলার প্রথমার্ধের শেষ দিকে রেফারি রবিউল ইসলাম ফাউল করার অপরাধে রংধনুর সোনাকে হলুদ কার্ড দেখান।

পক্ষান্তরে চলন্ত স্পোর্টিং ক্লাবের কামাল সারা মাঠ চষে বেড়ান। কামাল ও রতনের সঙ্গে সহযোগী খেলোয়াড়ের দারুণ বোঝাপড়া ছিল। কাঁদা মাঠে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেন চলন্ত এসির খেলোয়াড়েরা।

কলাবাগান ফুটসাল প্রিমিয়ার লীগের ম্যান অব দ্য হিসেবে পুরস্কার পান শিরোপাজয়ী দলের রতন এবং ম্যান অব দ্য টুর্নামেন্টের পুরস্কার লাভ করেন একই দলের কামাল। ফাইনাল খেলা শেষে ট্রফি তুনে দেন ঝিনাইদহ শহরের অংকুর নাট্যগোষ্ঠীর বিশিষ্ট অভিনেতা কামরুল ইকবাল। চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ দল যথাক্রমে পেয়েছে নগদ ৬ হাজার ও ৪ হাজার টাকা।

চলন্ত স্পোর্টিং ক্লাব : গোলকিপার ফিরোজ, কামাল, রতন, জয়, রনি, কার্তিক ও হৃদয়। অতিরিক্ত টিটন, মানিক ও সজিব।
রংধনু স্পোর্টিং ক্লাব ; গোলকিপার রাজু, সোনা, সবুজ, মানিক, লিয়ন, তামিম, আলামিন ও কাইফ। অতিরিক্ত অনন্ত, রবি, সোহেল ও অন্তর।

ফাইনাল খেলা শেষে ঝিনাইদহ শহরের কলাবাগানের তরুণ বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক মোঃ সজিব আহমেদ ও সৌমিন রায় এই প্রতিবেদককে জানান, আগামীতে এই ধরণের ফুটবল প্রতিযোগিতার আয়োজন করবো আমরা। স্থানীয় দলসহ বাইরের দলগুলোকে আমরা আমন্ত্রণ জানাবো আশা করি।

শেয়ার করুন ..