ব্লাকহেডস দূর করুন সহজ ঘরোয়া উপায়!

251

ত্বক ঠিকমত পরিষ্কার করা না হলে লোমকুপের গোঁড়ায় ময়লা জমে সৃষ্টি হয় ব্ল্যাকহেডসের। নারী ও পুরুষ উভয়েই এ সমস্যায় ভুগেন। মূলত ব্ল্যাকহেডস লোমকূপের নিচে থাকে। শুরুতে ব্ল্যাকহেডসের প্রতিকার করা না হলে ত্বকে ব্রণ হতে পারে। চর্ম রোগের মধ্যে ব্ল্যাকহেডস একটি মারাত্মক সমস্যা। অনেকের সুন্দর চেহারায় গুটি গুটি কালো দাগ দেখা যায় একেই ব্ল্যাক হেডস বলে।

তৈলাক্ত এবং শুষ্ক উভয় স্কিনেই এই সমস্যা দেখা দিতে পারে। অনেকে অনেক কিছু ব্যাবহার করেও কোন উপকার পায় না কিন্তু অল্প চেষ্টায় এ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। আসুন এ বেপারে জেনে নেই:

ব্ল্যাক হেড দূরীকরণে যা করণীয়
উপকরণ

১। সুজি ১চা চামচ
২। মধু ১চা চামচ
৩। খাঁটি দুধ এক চা চামুচ
৪। ১চা চামচ লেবুর রস

প্রনালি

সব গুলু উপকরণ এক সাথে মিশিয়ে তা ভালোভাবে মুখে লাগাতে হবে। যে সব যায়গায় ব্ল্যাকহেডস আছে সে সব যায়গায় ভাল ভাবে লাগাতে হবে। এর পর আস্তে আস্তে আঙ্গুলের ডগা দিয়ে ম্যাসেজ করতে হবে। ২০ মিনিট পর বিশুদ্ধ পরিস্কার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে পেলেতে হবে। এতে করে মুখের তৈলাক্ততা ও ব্ল্যাক হেডস কমে আসবে।

এছাড়াও আরও বিভিন্ন উপায় রয়েছে এই ব্লাক হ্যাডস দূর করারঃ

এই সমস্যায় করণীয়।

উপকরণগুলো হলো, মিন্ট টুথপেষ্ট, লবণ বা বেকিং সোডা ও বরফের টুকরো।

প্রস্তুতকরণ
প্রথমে একটি পাত্রে মিন্ট টুথপেষ্ট নিয়ে এর সঙ্গে লবণ মেশাতে হবে। টুথপেস্ট এবং লবণ সামান্য পানি দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে নিতে হবে।

ব্যবহার
মুখমণ্ডল ভাল করে ধুয়ে ফেলতে হবে। এবার ভেজা মুখে প্যাকটি লাগাতে হবে। বিশেষ করে নাক, চিবুক যে স্থানগুলোতে ব্ল্যাকহেডস বেশি হয়ে থাকে। এবার ৫-১০ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। কিছুক্ষণের জন্য জ্বালাপোড়া করতে পারে। অল্প কিছুক্ষণ পর এটি চলে যাবে। (খুব বেশি জ্বালাপোড়া করলে ব্যবহার করা যাবে না)

পাঁচ মিনিট পর প্যাক মুখে বসে গেলে ভেজা আঙুল দিয়ে ত্বক ম্যাসাজ করতে হবে। ত্বকে ম্যাসাজ করার জন্য দুই আঙুল ব্যবহার করতে হবে। আলতোভাবে ম্যাসাজ করতে হবে যেন ত্বকের ক্ষতি না হয়।

তারপর কসুম গরম পানি দিয়ে মুখ ভাল করে ধুয়ে ফেলতে হবে। সব শেষে বরফের টুকরা দিয়ে মুখ ম্যাসাজ করে ফেলতে হবে। এটি ত্বকের খোলা লোমকূপগুলো বন্ধ করে দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে ত্বকের ময়লাও দূর করবে। প্যাকটি ব্যবহারের সময় অনেকের নাক বা চিবুকের ত্বক লাল হয়ে যেতে পারে, এতে ভয় পাওয়ার কিছু নাই। এটি সাময়িক।

সতর্কীকরণ
প্যাকটি চোখের কাছাকাছি জায়গাগুলোতে লাগানো যাবে না।

এটি ব্যবহার করার পর অবশ্যই বরফ দিয়ে ত্বকের লোমকূপ বন্ধ করে দিতে হবে।

ঘরে বসেই ব্ল্যাকহেডস দূর করতে কিছু পরামর্শ রইল

 সুন্দর থাকার অন্যতম শর্ত হলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা। নিয়মিত মুখমণ্ডল পরিচ্ছন্ন রাখলে ব্ল্যাকহেডস হওয়ার আশঙ্কা অনেকটাই কমে যায়।

 মনে রাখতে হবে, কোষের প্রসারণের কারণে তাতে ধুলাবালু জমে ব্ল্যাকহেডসের সূত্রপাত ঘটে। অত্যধিক গরমে এটি হয়ে থাকে। অনেক সময় রূপচর্চার সময় গরম ভাপ নেওয়া হলেও এটি ঘটতে পারে। সে ক্ষেত্রে গরম ভাপ নেওয়ার পর কিংবা প্রখর রোদে ঘেমে ঘরে ফেরার পর অবশ্যই বরফ দিয়ে নাকে ও চোয়ালে কিছু সময় মালিশ করতে হবে। এতে কোষগুলো আবারও সংকুচিত হয়ে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যাবে।

 যাঁরা এর মধ্যেই নাকে সাদা শালের উপদ্রব টের পেয়েছেন, তাঁরা যেকোনো লোশন বা ম্যাসাজ ক্রিম ও পেট্রোলিয়াম জেলি একত্রেমিশিয়ে হালকা করে নাকে কিছু সময় মালিশ করুন। নাকের ত্বক নরম হলে গরম পানিতে রুমাল ভিজিয়ে হালকা চাপ দিয়ে সাদা শালগুলো তুলে নিতে পারেন।

 ডিমের সাদা অংশের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা লেবুর রস মিশিয়েও নাকে লাগানো যেতে পারে। লাগানোর পর এর ওপর একটা পাতলা কোমল কাপড় আটকে দিতে হবে। শুকিয়ে গেলে টান দিয়ে তুলে ফেলতে হবে। এতে ব্ল্যাকহেডস উঠে যাবে।

 আঙুলের ডগায় মধু নিয়ে নাকে ও চোয়ালে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে কিছু সময় মালিশও করতে পারেন। এরপরকুসুমগরম পানিতে ধুয়ে নিন।

 পাকা টমেটো পুরো মুখে লাগিয়ে নিয়ে ব্ল্যাকহেডসের অংশগুলো ১৫ মিনিট ধরে হালকা মালিশ করুন। তারপর গরম পানিতে ধুয়ে নিন।

 চালের গুঁড়ার সঙ্গে টক দই ও দুই-তিন ফোঁটা মধু মিশিয়ে স্ক্রাবার হিসেবেও ব্যবহার করতে পারেন নাকে-চোয়ালে। এতে মৃদু মালিশে ব্ল্যাকহেডস দূর হয়ে যায়।

 যাঁদের ব্ল্যাকহেডস এর মধ্যেই অনেক বেশি শক্ত হয়ে বসেছে তাঁরা ওপরের যেকোনো একটি উপায় অনুসরণ শেষে ব্ল্যাকহেডস দূর করার ক্লিপের সহায়তা নিতে পারেন। বাজারে একধরনের সরু ক্লিপ পাওয়া যায়, যেটি কেবল ব্ল্যাকহেডস দূর করতেই ব্যবহার করা হয়। এটি দিয়ে হালকা চাপ দিলে বেরিয়ে আসে ভেতরের বাড়তি অংশটি, যেটি আপনার সৌন্দর্যের বাধা সৃষ্টিকারী।এবার বিদায় জানান ব্ল্যাকহেডসকে। আপনার নাকের ডগায় বসে এমন সাহস আর আছে কার?

শেয়ার করুন ..