সরকার আদালতকে ‘কারাবন্দি’ করেছে: রিজভী

234

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার বিচারকাজ কারাগারের ভেতরে করার মধ্য দিয়ে সরকার আদালতকেই কারাগার বন্দি করেছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ।

বৃহস্পতিবার নয়াপল্টনে নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এ দাবি করেন। প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে পরিকল্পিতভাবে কারাগারে রেখে নির্যাতন করছেন বলেও দাবি এই বিএনপি নেতার।

রিজভী বলেন, ‘জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় বিশেষ আদালত বকশিবাজার আলিয়া মাদ্রাসার স্থলে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া যেখানে বন্দি নাজিম উদ্দিন রোডের সেই পুরোনো কারাগারে আদালত বসানো হয়।’

‘সরকার প্রধানের অদম্য প্রতিহিংসার দ্রুত চরিতার্থ করার জন্য আদালত স্থানান্তরের এই অসাংবিধানিক ন্যাক্কারজনক কাজটি করা হয়েছে। তারা আইনকানুনের কোনও ধার ধারছে না। আদালতকে বন্দি করা হয়েছে কারাগারে।’

‘সরকারের উদ্দেশ্য খালেদাকে বিপর্যস্ত করা’

বিএনপি নেত্রীকে কারাগারে আটকে রেখে গণতন্ত্রকেই বন্দী করে রাখা হয়েছে উল্লেখ করে রিজভী বলেন, ‘সরকারের উদ্দেশ্য দুইটি, একের পর এক মিথ্যা মামলায় দেশনেত্রীর বিরুদ্ধে সাজার স্তুপ বৃদ্ধি করা। আরেকটি উদ্দেশ্য দিনের পর দিন আটকে রেখে শারিরীক অসুস্থতার আরও অবনতি ঘটিয়ে বেগম জিয়াকে বিপর্যস্ত করা।’

‘বুধবার আপনারা (সাংবাদিকরা) দেখেছেন তাকে (খালেদা) হুইল চেয়ারে করে নিয়ে আসা হয়েছে। হাত-পা নড়াতে তার অসুবিধা হচ্ছিল। তিনি এতটাই অসুস্থ ছিলেন যে, রীতিমতো কাঁপছিলেন এবং চেয়ার থেকে দাঁড়াতে পারছিলেন না। বার বার দাবী করা সত্ত্বেও তার সু-চিকিৎসায় সরকার অবহেলা করেছে।’

চিকিৎসকদের পরামর্শনুযায়ী খালেদার যথাযথ স্বাস্থ্য পরিক্ষা করানো হয়নি দাবি করে বিএনপি নেতা বলেন, ‘দল ও পরিবারের পক্ষ থেকে তার সু-চিকিৎসার দাবী বারবার উপেক্ষা করেছে সরকার। গণমাধ্যমের কর্মীরা নিজেরা মঙ্গলবার স্বচক্ষে দেখলেন এবং তাদের মাধ্যমে জাতি আবারও জানল- বেগম খালেদা জিয়া কতটা গুরুতর অসুস্থ।’

‘কারাগারের কক্ষটি খালেদার বাস করার অনুপযুক্ত’

কারাগারে খালেদাকে যে কক্ষটি দেয়া হয়েছে সেটি বাস করার জন্য অনুপযুক্ত দাবি করে রিজভী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী পরিকল্পিতভাবে খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে নির্যাতন করছেন। পরিত্যক্ত মেরামতহীন অপরিচ্ছন্ন জরাজীর্ন কক্ষটি সরকারের ইচ্ছায় দেয়া হয়েছে, যাতে তিনি (খালেদা)স্বাস্থ্যকর পরিবেশে নির্বিঘ্নে বাস করতে না পারেন, তিনি যেন সারাক্ষণ কষ্ট পান সে জন্যই এই ব্যবস্থা।’

অন্ধকার কারাগারে আদালত বসানো খালেদা জিয়াকে ন্যায় বিচার থেকে বঞ্চিত করার শামিল বলে দাবি করে রিজভী বলেন, ‘তার ওপর যে অবিচার চলছে তা মানবধিকার লঙ্ঘন। এটি সরকারের বেআইনি হিংস্র আচরন। গতকালও (মঙ্গলবার) তাকে জোর করে আদালতে হাজির করা হয়েছে। এর জবাব জনগনের কাছে দিতেই হবে ক্ষমতাসীনদের।’

‘ঈদের সময় থেকে ১৫শ’র অধিক নেতাকর্মী গ্রেপ্তার’

ঢাকা মহানগরসহ সারাদেশে বিএনপির নেতাকর্মীদের সরকার বাড়ি ছাড়া-পরিবার ছাড়া পলাতক জীবন বেছে নিতে বাধ্য করেছে উল্লেখ করে রিজভী বলেন, ‘ঈদের কয়েকদিন আগে থেকে এখন পর্যন্ত দেড় হাজারের বেশি বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মামলা হয়েছে বারোশ’ আর নামোল্লেখ করে এসব মামলায় ১১ হাজারের বেশি আসামি করা হয়েছে।’

‘সরকার বিরোধী দলের ওপর যত জুলুম করছে ততই সরকারের পতন ঘনিয়ে আসছে। অশান্তির আগুনে মানুষ দগ্ধ হচ্ছে। জনগনের সাথে প্রতারনার মাশুল সরকারকে দিতেই হবে।’

শেয়ার করুন ..