আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস আজ

530

আজ ৮ সেপ্টেম্বর (শনিবার). আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতোই বাংলাদেশেও উদযাপিত হবে দিবসটি। দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান দিবসটি পালনে নানা কর্মসূচি নিয়েছে। চলতি বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য হচ্ছে- ‘সাক্ষরতা অর্জন করি, দক্ষ হয়ে জীবন গড়ি।’

বিশ্বজুড়ে সাক্ষরতার হার দিন দিন বাড়লেও বর্তমানে বিশ্বের ২৬ কোটির বেশি শিশু-কিশোর স্কুলে যায় না এবং প্রায় ৬২ কোটি মানুষ সাক্ষরতা ও হিসাব-নিকাশে ন্যূনতম দক্ষতা অর্জন করতে পারেনি বাংলাদেশে বর্তমানে সাক্ষরতার হার ৭২.৯ শতাংশ, গত বছর যা ছিল ৭২.৩ শতাংশ। অর্থাৎ ১ বছরে দেশে সাক্ষরতার হার বেড়েছে দশমিক ৬ শতাংশ। মোট হিসাবে বর্তমানে দেশে নিরক্ষর মানুষের সংখ্যা ৩ কোটি ২৫ লাখ। অর্থাৎ শতভাগ সাক্ষরতা অর্জনের বিষয়টি এখন পর্যন্ত সন্তোষজনক অবস্থায় নেই।

আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে গণশিক্ষামন্ত্রীঅ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান বলেছেন, নানা প্রতিবন্ধকতার কারণে শতভাগ সাক্ষরতা অর্জন করা সম্ভব হয়নি। তবে তিনি আরও বলেছেন, দেশে যতদিন পর্যন্ত একজন নিরক্ষরও থাকবে, ততদিন পর্যন্ত সরকার সাক্ষরতা কার্যক্রম চালিয়ে যাবে। উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার মাধ্যমে বিদ্যালয়বহির্ভূত শিশুদের প্রাথমিক শিক্ষা ও নিরক্ষরদের সাক্ষরজ্ঞান দেয়া হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

১৯৬৫ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কো ৮ সেপ্টেম্বরকে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। ব্যক্তি, গোষ্ঠী ও সমাজের মধ্যে শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা ও তাৎপর্য তুলে ধরার ল্েয দিবসটি নির্ধারণ করা হয়। ১৯৬৬ সালে বিশ্বে প্রথম আন্তর্জাতিক সারতা দিবস পালন করা হয়। প্রতি বছর এর মাধ্যমে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বিভিন্ন দেশের সাক্ষরতা এবং বয়স্ক শিার অবস্থা তুলে ধরা হয়। স্বাধীন বাংলাদেশে ১৯৭২ সালে প্রথম সাক্ষরতা দিবস উদযাপিত হয়।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে আজ শনিবার সকাল ৮টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে শিল্পকলা একাডেমি পর্যন্ত এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়েছে। শোভাযাত্রায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান নেতৃত্ব দেবেন। এ ছাড়া শোভাযাত্রায় শিক্ষক ও কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকবেন। সকাল সাড়ে ৯টায় রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রাথমিক ও গণশিামন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।

এ ছাড়াও দিবসটি উপলে শোভাযাত্রা, আলোচনাসভা, বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোয় সড়কদ্বীপ সজ্জিতকরণ, গোলটেবিল বৈঠক ও টেলিভিশন টকশো আয়োজন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন ..