নির্বাচনী কর্মকর্তা হচ্ছেন আ.লীগ সমর্থিতরা: বিএনপি

364

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী সমর্থিতদের নির্বাচনী কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেয়ার কার্যক্রম চলছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি নেতা রিজভী।

আজ মঙ্গলবার সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নিয়মিত সংবাদ ব্রিফিংয়ে এই অভিযোগ করেন তিনি।

রিজভী জানান, দেশব্যাপী স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার শিক্ষকদের তালিকা করা হচ্ছে। যারা বিএনপি বা বিএনপি পরিবারের সঙ্গে যুক্ত তাদের বাদ দিয়ে আওয়ামী সমর্থিত লোকদের নির্বাচনী কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দেয়ার কার্যক্রম চলছে।

রিজভী বলেন, ‘আসন্ন জাতীয় নির্বাচন একতরফা করতে অবৈধ ভোটারবিহীন সরকার নানা নীলনকশা করেই যাচ্ছে। দেশব্যাপী বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় থানায় গায়েবি মামলা অব্যাহত রয়েছে। সরকারের নীলনকশার অংশ হিসেবে আগামী নির্বাচনে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী ও সক্রিয় নেতা-কর্মী এবং সমর্থকদের বিরুদ্ধেও ঢালাওভাবে মামলা দেয়া হচ্ছে।’

‘মানুষের সকল অধিকার কেড়ে নেয়া হয়েছে। প্রশাসনকে দলীয়করণ করে ধ্বংস করা হয়েছে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে বানানো হয়েছে সরকারের দলীয় বাহিনীতে, বিচার বিভাগের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা হয়েছে, নিম্ন আদালতে এখন ন্যায়বিচার উধাও হয়ে গেছে।’

বর্তমান সরকারকে অত্যাচারী আখ্যা দিয়ে বিএনপির এই নেতা বলেন, গতকাল জাতিসংঘের পক্ষ থেকে মত প্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করার আহবান জানানো হয়েছে। জাতিসংঘ বলেছে, অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য এটা অপরিহার্য। সাম্প্রতিক সময়ে সেখানে বিক্ষোভরত শিক্ষার্থী ও সাংবাদিকদের ওপর হামলা হয়েছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মানহানির অভিযোগ আনা হয়েছে। তাদের সঙ্গে খারাপ আচরণের রিপোর্ট পাওয়া গেছে। সেজন্য এই সরকার দেশ-বিদেশের কারও দৃষ্টিকেই আর ফাঁকি দিতে পারবে না।

সংবাদ সম্মেলনে দুর্নীতি মামলা কারাবন্দি দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসায় সরকার কার্যকর কোনো উদ্যোগ নেয়নি বলে দাবি করেন বিএনপি এই নেতা।

খালেদা জিয়া চিকিৎসা নিয়ে ছলচাতুরী চলছে দাবি করে রিজভী বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া গুরুতর অসুস্থ হলেও এখনও পর্যন্ত তার সুচিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা নেয়নি সরকার। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও দলের স্থায়ী কমিটির একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার দুই দিন পার হলেও খালেদা জিয়ার চিকিৎসা বিষয়ে কোনো কার্যকর উদ্যোগ দেখা যায়নি।’

‘তার (খালেদা) ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা আশঙ্কা প্রকাশ করছেন দ্রুত বেগম জিয়ার চিকিৎসা না দেয়া হলে তার বাম পা ও হাত অবশ হয়ে যেতে পারে। তার শারীরিক অবস্থা দিন দিন অবনতি হচ্ছে। তার চিকিৎসা নিয়ে ছলচাতুরি চলছে এবং কালক্ষেপণ করা হচ্ছে।’ সেজন্য দেরি না করে দ্রুত খালেদা জিয়াকে বেসরকারি বিশেষায়িত হাসপাতালে সুচিকিৎসার জোর দাবি জানান তিনি।

গতকাল দেশব্যাপী পালন করা মানববন্ধনে পুলিশ ব্যাপক ধরপাকড় চালিয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানান রিজভী। এ ঘটনাকে ন্যাক্কারজনক আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, ‘সভা-সমাবেশসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা রাজনৈতিক দলগুলোর সাংবিধানিক অধিকার। তারপরও যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করলেও নির্বিচারে গ্রেপ্তারের ঘটনা ন্যাক্কারজনক। মানববন্ধনের মতো শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে হামলা, গুলি ও নির্বিচারে গ্রেপ্তারের ঘটনায় দেশজুড়ে সমালোচনার ঝড় বইছে।’

খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বুধবার ঢাকা মহানগরসহ সারাদেশে ‘প্রতীক অনশনে’ যথাসময়ে উপস্থিত থাকতে বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সকল নেতাকর্মীদের আহ্বান জানান তিনি।

শেয়ার করুন ..