শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে শুভ সূচনা বাংলাদেশের

252

জয় দিয়েই এশিয়া কাপ শুরু হলো টাইগারদের। দুবাইতে চলমান এশিয়া কাপের এবারের আসরে নিজেদের ও টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে প্রতিপক্ষ শ্রীলংকার বিপক্ষে ১৩৭ রানের বড় জয় পায় বাংলাদেশ।

ম্যাচে বাংলাদেশের করা ২৬১ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারটা বেশ ভালোই খেলে শ্রীলংকা। তবে নিজেদের ব্যাটিং ইনিংসে সাফল্য বলতে শুধু ওটুকুই। ইনিংসের প্রথম ওভারে মাশরাফির কাছ থেকে ১৩টি রান আদায় করে নেন ওপেনার উপুল থারাঙ্গা। এরপর থেকেই নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে লংকানরা।

ইনিংসের দ্বিতীয় আর ব্যক্তিগত প্রথম ওভারেই লংকান শিবিরে আঘাত করেন মোস্তাফিজুর রহমান। অজন্তা মেন্ডিসকে গোল্ডেন ডাকে সাজঘরে পাঠিয়ে দেন তিনি। আর এর পরের ওভারে আগের ওভারে দেওয়া ১৩ রানের মধুর প্রতিশোধ নিলেন যেন টাইগার দলপতি। ১৬ বলে ২৭ করা থারাঙ্গাকে আরও ভয়ংকর হয়ে ওঠার আগেই বিদায় পথ দেখান নড়াইল এক্সপ্রেস।

এরপর ধনঞ্জয় ডিসিলভাকে রানের খাতা খুলতেই দেননি টাইগার অধিনায়ক। মাত্র ৩৮ রানেই টপ অর্ডারের চার ব্যাটসম্যানকে হারানো শ্রীলংকা তখন খুঁজছিলো ম্যাচ বাঁচানোর পথ। কিন্তু নিজেদের দিনে শ্রীলংকাকে কোন ছাড় দিতে যেন নারাজ-ই ছিলো মাশরাফি-মোস্তাফিজ-মিরাজ আর রুবেলরা।

শ্রীলংকার দলীয় ৬০ থেকে ৬৯; এই ১০ রানের মধ্যে বাংলাদেশ তুলে নেয় আরও ৩ উইকেট। তাই জয়টা ছিলো তখন সময়ের ব্যবধান মাত্র।

শেষ দিকটায় অবশ্য দলের জন্য কিছু রান করেছেন থিসারা পিরেরা। দলের হয়ে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ২৯ (৪৪ বলে) রান করেন তিনি। তবে তা কেবলই সান্ত্বনা।

একহাত নিয়ে মাঠে নামা তামিমের অনুপ্রেরণায় খালি হাতে যায়নি বাংলাদেশের কোন বোলার। মাশরাফি, মোস্তাফিজ আর মেহেদি হাসান মিরাজ নেন দুইটি করে উইকেট। আর একটি করে উইকেট নেন সাকিব আল হাসান, রুবেল হোসেন এবং মোসাদ্দেক হোসেন।

এর আগে টসে জিতে ব্যাটিং এর সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। তবে শুরুতেই বিপর্যয়ের মুখে পরতে হয় টাইগারদেরও। মাত্র দুই রানের মাথায় টপ অর্ডারের সাকিব ও লিটন দাসকে হারাতে হয় তাদের। তবে হাতে চোট পেয়ে মাঠ ছাড়া তামিম ইকবাল তো শেষটায় এসে ইতিহাসই রচনা করলেন।

মিডল অর্ডারে মোহাম্মদ মিঠুন আর মুশফিকুর রহিমের অনবদ্য ১৩২ রানের পার্টনারশিপের ওপর ভর করে বড় সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। মিঠুন পান আন্তর্জাতিক ওডিআইতে প্রথম অর্ধশতক আর মুশফিক তুলে নেন ক্যারিয়ারের পঞ্চম শতক (১৪৯ বলে ১৪৪ রান)।

নিজেদের ইনিংসের শেষে এসে একহাতে ব্যাট করতে নামা তামিমকে নিয়ে দলতে গুরুত্বপূর্ণ ৩২ রানে ফাইটিং স্কোর এনে দেন মুশফিক।

আর পুরস্কারস্বরুপ জিতে নেন ম্যাচের ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

আগামী ২০ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার আবুধাবিতে আফগানিস্তানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।

শেয়ার করুন ..