কচুশাকের উপকারিতা

1062

কচু একটি গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টিকর সবজি। এ শাকে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ‘এ’, ‘বি’ ও ‘সি’, ক্যালসিয়াম, লৌহ ও অন্যান্য পুষ্টি উপাদান রয়েছে। কচুশাক দুই ধরনের হয়ে থাকে- সবুজ কচুশাক ও কালো কচুশাক। সবুজ কচুশাকের চেয়ে কালো কচুশাক অনেক বেশি পুষ্টিকর। সহজে পাওয়া যায় এই সবজির রয়েছে নানা স্বাস্থ্যগুণ।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম ডিএনএ ইন্ডিয়ার স্বাস্থ্যবিষয়ক এক প্রতিবেদনে এসব গুণের কথা তুলে ধরা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, কচুশাকে আছে প্রোটিন, চর্বি, ক্যালসিয়াম, শর্করা, আয়রন, খাদ্যশক্তি, ভিটামিন এ, বি-৬ ও সি। সাধারণ কচুর ডগা এবং কালো রংয়ের কচুশাকে আয়রন থাকে প্রচুর পরিমাণে। রক্তশূন্যতায় ভোগা রোগীদের জন্য কচুশাক খাওয়া একরকম আবশ্যক।

যাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা আছে, তারা প্রচুর কচুশাক খেতে পারেন। কারণ কচুতে আছে অনেক আঁশ। যা খাবার সহজে হজম করতে সাহায্য করে। কচুশাক সারাদেহে অক্সিজেনের সরবরাহ বজায় রাখতে জুড়ি নেই। রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা কমে গেলে এমনিতেই শরীরে অক্সিজেনের সরবরাহ কমে যায়। সেই সরবরাহ সচল রাখতে কচুশাক অনেক বেশি কার্যকর। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কচুশাক দারুণ ভূমিকা রাখে।

এককভাবে কোনো নির্দিষ্ট অঙ্গপ্রত্যঙ্গের রোগের জন্য এই শাক কাজ না করলেও অন্যভাবে পুরো শরীরেরই উপকার করে। মাঝে মাঝে সামান্য গলা চুলকানো ছাড়া কচু শাকের কোনো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই বললেই চলে। শাকে যতটুকু ক্ষতিকর অক্সালিক অ্যাসিড থাকে তা এক রাত পানিতে ভিজিয়ে রাখলেই চলে যায়।

শেয়ার করুন ..