নর্দার্ন ইউনিভার্সিটিতে বিজয় দিবস পালন

243

বিভিন্ন কর্মসূচীর মাধ্যমে মহান বিজয় দিবস উদযাপন করেছে নর্দার্ন ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ। গত মঙ্গলবার সকালে ইউনিভার্সিটির সামনে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের উদ্ভোধন করেন নর্দার্ন ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আবু ইউসুফ মো. আব্দুল্লাহ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে নিহত শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন নর্দান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আবু ইউসুফ মো. আব্দুল্লাহ, বিশেষ অতিথির বক্তব্য ও মুক্তিযুদ্ধের বর্ণনা বিষয়ক গল্প বলেন বাংলাদেশের একমাত্র ছাত্র বীর বিক্রম মেজর (অবঃ) এটিএম হামিদুল হোসাইন, পিএসসি।

প্রধান অতিথি প্রফেসর ড. আবু ইউসুফ মো. আব্দুল্লাহ মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা ও মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অবদান এবং বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করে বলেন সততা ও দেশ প্রেমের মাধ্যমে একটি সুন্দর বাংলাদেশ বিনির্মাণে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে যেতে হবে এবং কাক্সিক্ষত উন্নয়নের মাধ্যমে স্বপ্নের বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হলে তবেই শহীদদের আত্মত্যাগ সার্থক হবে।

অন্যান্যদের মধ্যে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন নর্দান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ এর উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. আনোয়ারুল করীম, ট্রেজারার ডীন প্রফেসর ড. মোশাররফ এম. হোসাইন, রেজিস্ট্রার লে. কর্নেল একতেদার আহমেদ সিদ্দিকী(অব:)।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বিভিন্ন অনুষদের ডীন, বিভাগীয় প্রধানগণ এবং বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকম-লী, শিক্ষার্থীরা, কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন। এ অনুষ্ঠানে মহান মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদান রাখার জন্য মেজর (অবঃ) এটিএম হামিদুল হোসাইন পিএসসি কে বিশেষ সম্মামনা প্রদান করা হয়।

মহান মুক্তিযুদ্ধের সর্বকনিষ্ট বীর বিক্রম মেজর (অব:) এটিএম হামিদুল হোসেন, পিএসসি তাঁর নিজ লেখা মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক বই “জলছবি ৭১” নর্দান বিশ^বিদ্যালয় বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষকে প্রদান করেন। সকলের সমবেত জাতীয় সংগীত পাঠের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি করা হয়।

শেয়ার করুন ..