আশাশুনির ভাঙ্গন কবলিত থানাঘাটা ভেড়ীবাঁধ রক্ষার চেষ্টা বিফল : আরও ১০ গ্রাম প্লাবিত

400

জি এম মুজিবুর রহমান ::
আশাশুনি উপজেলার থানাঘাটা ভেড়ীবাঁধটি ভেঙ্গে যাওয়ার পর এলাকাবাসীর সম্মিলিত চেষ্টায় বাঁধ দেওয়া হলেও শেষ রক্ষা হয়নি। রাতেই বাঁধটি পুনরায় ভেঙ্গে নতুন করে ৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের ভেড়ী বাঁধটি দীর্ঘদিন যাবৎ খুবই জরাজীর্ণ ছিল। গত বছর বাঁধটি ভেঙ্গে গেলে ইউপি চেয়ারম্যান আবুহেনা সাকিলের নেতৃত্বে স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করে প্রাথমিকভাবে বাঁধটি নির্মান করা হয়। এরপর টেইসই বাঁধ নির্মান করার জন্য সরকার কর্তৃক আট লক্ষ টাকা টেন্ডারের মাধ্যমে ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়। কিন্তু ঠিকাদার আঃ সালাম ও আঃ মান্নান আজ কাল করে কাজ ফেলে রাখায় নদীর পানির চাপে বাঁধটি ভেঙ্গে যায় শনিবার রাতে। ফলে ৪টি গ্রামসহ বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়।

হাজার হাজার মানুষ সহায় সম্বল হারিয়ে ওয়াপদা বেড়ী বাঁধের উপর ও সাইক্লোন শেল্টারে আশ্রয় নেয়। রবিবার বিকালে ভাটা নেমে গেলে স্থানীয় চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে গ্রামবাসী স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধটি রক্ষার কাজ শুরু করেন এবং রাত ১২টার দিকে কাজ শেষ হয়। কিন্তু রাতের জোয়ারের পানির চাপে আবারও ভেঙ্গে যায়। এর ফলে থানাঘাটা, মাড়িয়ালা, বিল বকচর, বকচর, ঢালীরচক, পুইজালা, বিল মহিষকুড়, বুড়াখারাটি, নাকতাড়া গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

রাতের জোয়ারে মহিষকুড়, শ্রীউলা, বিল শ্রীউলা, উঃ পুইজালা, হাড়ির হাটখোলা গ্রাম প্লাবিত হতে পারে। উপজেলা চেয়ারম্যান এবিএম মোস্তাকিম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাফফারা তাসনীন, ইঞ্জিনিয়ার আক্তার হোসেন, পিআইও সেলিম খান, পাউবোর কর্মকর্তা সোমবার ভাঙ্গনকুল পরিদর্শন করেন।

উপজেলা চেয়ারম্যান জানান, শ্রীউলা ইউনিয়ন অত্যান্ত ঝুকিপূর্ন ইউনিয়ন। কারন এই ইউনিয়নের তিন ধারে নদী বেষ্টনিতে আছে। বছরে ২/১ বার বাঁধ ভেঙ্গে ইউনিয়নটি প্লাবিত হয় না এমন বছর কমই আছে। গত দুই দিনে জোয়ারে পানি প্রবেশ করে সীমাহীন ক্ষতি হয়েছে। মসজিদে নামাজ আদায় করতে পারছেনা মুসুল্লিরা, হিন্দু ধর্মাবলম্বিরা মন্দিরে সন্ধ্যা প্রদীপ জালাতে পারছেনা, কোমলমতি ছাত্র ছাত্রীরা স্কুলে যেতে পারছেনা।

হাজার হাজার বিঘা জমির মৎস্য ঘের ভেসে গেছে। শত শত ঘরবাড়ি পানিতে নিমজ্জিত। সবমিলে বাঁধ ভাঙ্গনের ফলে কোটি কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। ইউএনও মাফফারা তাসনীন বলেন, কষ্ট করে বাঁধটি বাধার পরও রক্ষা হয়নি। ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আজ পুনরায় বাধার চেষ্টা চলছে। এলাকা বাসীর দাবী দ্রুত টেইসই মজবুদ ভাঙ্গন বাঁধ নির্মান করে পানি বন্ধি হাজার মানুষের রক্ষায় গনতন্ত্রের মানষ কন্যা প্রধান মন্ত্রি শেখ হাসিনার আশু হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে ।

শেয়ার করুন ..